প্রাথমিক নিয়োগ মামলায় নয়া মোড়! ৭৯৪ জনের তালিকা প্রকাশ করল সংসদ, কাদের কপাল খুলল?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ নিয়োগ দুর্নীতি মামলা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তোলপাড় রাজ্য। এসএসসি থেকে শুরু করে প্রাথমিক (Primary Recruitment Scam), মাদ্রাসা, একাধিক নিয়োগ পরীক্ষা নিয়ে হয়েছে বিতর্ক। বহুক্ষেত্রে আবার জল গড়িয়েছে কলকাতা হাই কোর্ট (Calcutta High Court) অবধি। এবার উচ্চ আদালতের নির্দেশ মতোই কপাল খুলল প্রাথমিকের ৭৯৪ জন চাকরিপ্রার্থীর।

বৃহস্পতিবার উত্তর ২৪ পরগণা (North 24 Parganas) জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের (District Primary School Council) তরফ থেকে মেরিট লিস্ট প্রকাশ করা হয়। হাই কোর্টের নির্দেশ অনুসারে প্রকাশিত হয় এই তালিকা। তা দেখে বহু চাকরিপ্রার্থীর মুখে হাসি ফুটেছে। প্রায় দেড় দশক ধরে চাকরির জন্য অপেক্ষা করার পর মেরিট লিস্টে নিজেদের নাম দেখে অনেকে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন। দ্রুত জয়েনিং হয়ে সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে, এই আশাই করছেন সকলে।

   

গত ২৫ এপ্রিল কলকাতা হাই কোর্টের তরফ থেকে ২ মাসের মধ্যে (হাই কোর্টে আবেদনকারী) ৮০০ প্রার্থীকে চাকরি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। ২০০৯ সাল থেকে চাকরির অপেক্ষায় রয়েছেন ওই প্রার্থীরা। এদিকে সেই বছরের প্রাথমিকের নিয়োগ পরীক্ষায় যে দুর্নীতি হয়েছিল, তা স্বীকার করে নিয়েছিল উত্তর ২৪ পরগণা জেলার প্রাইমারি ডিস্ট্রিক্ট কাউন্সিল।

আরও পড়ুনঃ রাতের ঘুম উড়ল কলকাতাবাসীর! বকেয়া সম্পত্তি করে ছাড় বন্ধ করছে কলকাতা পুরসভা, জানুন নয়া নিয়ম!

মামলার শুনানির সময় বিচারপতি জিজ্ঞেস করেছিলেন, কী চান? বোর্ড চাকরি দেবে নাকি তদন্ত হবে? জবাবে কাউন্সিলের তরফ থেকে বলা হয়, আমরা চাকরি দিতে তৈরি। এরপরেই ধাপে ধাপে শুরু হয় প্রক্রিয়া। এই বিষয়ে মেরিট লিস্টে নাম থাকা একজন প্রার্থী বলেন, ‘নাম দেখার পর আমরা সত্যি খুব খুশি। কবে জয়েনিং লেটার পাব, সেই নিয়ে একটু চিন্তায় রয়েছি’।

Primary recruitment scam

এই বিষয়ে জনপ্রিয় এক সংবাদমাধ্যমের তরফ থেকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান দেবব্রত সরকারকে ফোন করা হলে তিনি বলেন, ‘হাই কোর্টের নির্দেশ অনুসারে নামের তালিকা প্রকাশ করেছি। যেমন নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল, তেমনটাই করছি’। অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার হাতে পেতে কত সময় লাগবে জিজ্ঞেস করায় তিনি বলেন, ‘এবার আমরা প্যানেল বানাব। সেটা কমিশনার অফ স্কুল এডুকেশনকে পাঠানো হবে। ওনার চূড়ান্ত অনুমোদনের পর আমরা অ্যাপয়েন্টমেন্ট লেটার দিতে পারব’।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর