সোনা নিয়ে সরকারের এই নিয়ম না মানলেই বিপদ! বাড়িতে গুচ্ছেক হলুদ ধাতু রাখার আগে সাবধান

বাংলাহান্ট ডেস্ক: যুগ যুগ ধরে সোনার প্রতি আকর্ষণ মানুষের একটি চিরাচরিত স্বভাব। সোনার গহনা থেকে শুরু করে সোনার দ্রব্য, এসব কিছুই বড় প্রিয়  মানুষের। অনেকেই রয়েছেন যারা সুযোগ পেলেই কিনে রাখেন সোনার অলংকার। কেউ কেউ কেনেন সোনার গহনা, আবার কেউ কেউ সোনার বার (Gold), সোনার কয়েন (Gold Coin) ইত্যাদি কিনে থাকেন।

   

কিন্তু আপনি যদি একসাথে একগুচ্ছ সোনা কাছে রাখেন তাহলে এই নিয়ম অবশ্যই জেনে রাখুন, এই নিয়ম না জানলে আপনার পকেট ফাঁকা হবে খুব শিগগির। সোনার গহনা বা অন্যান্য সোনার দ্রব্য কাছে রাখার ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট সীমারেখা বেঁধে দিয়েছে সরকার। সরকার বেঁধে দেওয়া সীমারেখা যদি কেউ লঙ্ঘন করেন তাহলে তিনি আর বিনামূল্যে অর্থাৎ কর ছাড়া সেই সোনা নিজের কাছে রাখতে পারবেন না।

আরোও পড়ুন : এবার সকাল-সন্ধে বন্দে ভারত! চমকে দেওয়া আপডেট রেলের, কপাল খুলবে নিত্যযাত্রীদের

১. যদি কোনও ব্যক্তি আয়কর রিটার্নে অন্তর্ভুক্ত থাকেন এবং আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার সময় যদি কোনও ব্যক্তি তার নিজের কাছে থাকা সোনার পরিমাণ উল্লেখ করেন তাহলে সেই সোনা কখনই বাজেয়াপ্ত করা যাবে না। আয়কর রিটার্নে উল্লেখিত সোনার থেকে বেশি সোনা যদি ওই ব্যক্তির কাছে পাওয়া যায় তাহলে সরকার সেই সোনা বাজেয়াপ্ত করতে পারে।

আরোও পড়ুন : ‘শ্যাম বাহাদুর’ই অনুপ্রেরণা, নিরীহদের প্রাণ বাঁচাতে নিজের জীবন দিলেন IAF পাইলট, স্যালুট দেশবাসীর

২. আয়কর রিটার্নে অন্তর্ভুক্ত না থাকা ব্যক্তি সরকার উল্লেখিত নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত সোনা রাখতে পারেন নিজের কাছে। তবে সরকার নির্ধারিত সোনার পরিমাণের থেকে বেশি সোনা থাকলে সরকার তা বাজেয়াপ্ত করতে পারে।

৩. এছাড়াও সরকারকে কর দিতে হবে সোনার অলংকার বা সোনার কোনো বস্তু উপহার পাওয়ার ক্ষেত্রে। ৫০ হাজার টাকার উপর সোনার অলংকার অথবা সোনার বস্তু কর যোগ্য।

18 carat gold jewellery main

৪. তবে কিছু ক্ষেত্রে সোনার বস্তুর দাম ৫০ হাজার টাকা পার করলেও দিতে হয় না কর। স্বামী অথবা স্ত্রী বা স্বামী-স্ত্রীর ভাই-বোনেদের থেকে উপহার পেলে তার কর দিতে হয়না। এছাড়াও কর দিতে হয়না উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া সম্পত্তিতেও।

এছাড়াও, নিয়মের বাইরে অবিবাহিত মহিলারা ২৫০ গ্রাম এবং বিবাহিত মহিলারা ৫০০ গ্রাম ও পুরুষরা ১০০ গ্রাম সোনা রাখতে পারেন। সিবিডিটি (CBDT) এই সংক্রান্ত বিষয়ে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে ১৯৯৪ সালের ১১ মে।

 

সম্পর্কিত খবর