কাকুর পর এবার বালুর পালা! ‘মেয়েকে লেখা’ চিঠির রহস্যভেদ করতে জ্যোতিপ্ৰিয়র হস্তাক্ষর পরীক্ষা করবে ED

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ আগেই গ্রেফতার হয়েছেন জ্যোতিপ্ৰিয়। ওদিকে রেশন দুর্নীতি (Ration Scam) মামলায় সদ্য ইডির জালে বালু ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা শঙ্কর আঢ্য। শুক্রবার সকালেই উত্তর ২৪ পরগনার (North 24 Pargana) বনগাঁ পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্যর শ্বশুরবাড়িতে হানা দেয় ইডি। টানা ১৭ ঘণ্টা তল্লাশির পর অবশেষে রাতে গ্রেফতার করা হয় শঙ্কর আঢ্যকে। এই শঙ্করকে গ্রেফতারির সঙ্গেই সামনে উঠে আসে এক চিঠি। সেই চিঠি রহস্য ভেদ করতেই এবার ময়দানে নামছে ইডি (Enforcement Directorate’s)।

   

শঙ্কর আঢ্যকে গ্রেফতারির পর আদালতে ইডি জানায়, হাসপাতালে থাকাকালীন চিঠির মাধ্যমেই নাকি মেয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করতেন জ্যোতিপ্ৰিয়। কেন্দ্রীয় সংস্থার দাবি, কিছুদিন আগে যেদিন আদালতের নির্দেশে হাসপাতালে জ্যোতিপ্রিয়ের কেবিন থেকে সিসিটিভি ফুটেজ তুলে নেওয়া হয়, তার পরই তার সঙ্গে মন্ত্রী কন্যা প্ৰিয়দর্শনী দেখা করতে যায়। তার কাছে থেকেই জ্যোতিপ্রিয়র লেখা এক চিঠি উদ্ধার হয়। ইডি তরফে সেই চিঠি তুলে দাবি করা হয় চিঠিতে কার কাছে পাওনা কত, কাকে কত টাকা দিতে হবে, সেই সব কিছুর উল্লেখ ছিল। সেই চিঠি থেকেই শঙ্করের নাম সামনে যে বলে আদালতে জানায় ইডি।

তবে এ কথা যে কেবল ইডিই বলছে তেমনটা নয়। কেন্দ্রীয় সংস্থা সূত্রে খবর, গত ১৯ ডিসেম্বর তাদের জেরায় জ্যোতিপ্রিয় নিজ মুখেই চিঠি লেখার বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন। তবে মত বদল হতে কতক্ষণ? ইডির আশঙ্কা, পরে চিঠি লেখার বিষয়টি অস্বীকারও করতে পারেন জ্যোতিপ্রিয়। তাই তথ্যপ্রমাণ হাতে রাখতে এবার বালুর হাতের লেখা পরীক্ষা করতে চাইছেন গোয়েন্দারা।

ইডির দাবি, বাংলা, ইংরেজি মিশ্রিত সেই চিঠিতে শঙ্কর আঢ্য ছাড়াও আরও একাধিক নামের উল্লেখ রয়েছে। তবে তদন্তের গোপনীয়তার কারণে সেই চিঠিতে আর কাদের নাম ছিল তা এখনও জানানো হয়নি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা তরফে।

আরও পড়ুন: ‘টাকা ছিল না, গলার মটর মালার হার বিক্রি করে কলেজে ভর্তি হয়েছিলাম’, কষ্টের কথা শোনালেন মমতা

balu f

ইডির দাবি, চিঠির মাধ্যমেই নাকি মেয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করার সময় সেই চিঠি ধরে ফেলেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর সদস্যেরা। আদালতের নির্দেশেই হাসপাতালে জ্যোতিপ্রিয়ের পাহারায় ছিলেন সিআরপিএফ জওয়ানেরা। তারাই পরে সেই চিঠি ইডির হাতে তুলে দেন বলে জানা গিয়েছে। রেশন দুর্নীতির হিসেবের অঙ্ক রয়েছে সেই চিঠিতে। দাবি ইডির।

ওদিকে সম্প্রতি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র (Sujay Krishna Bhadra) ওরফে কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বরের নমুনা সংগ্রহ করে ইডি। গত বুধবার রাতে জোকা ইএসআই হাসপাতালে চিকিত্‍সক এবং ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞদের নির্দেশ মতো কণ্ঠস্বরের নমুনা সংগ্রহ করা হয় কালীঘাটের কাকুর। এরই মধ্যে এবার রেশন দুর্নীতিতে বালুর হাতের লেখা পরীক্ষা করতে চাইছে ইডি।