‘অল ইজ় নট ওয়েল’! আমরণ অনশনে ‘থ্রি ইডিয়টস’-এর র‌্যাঞ্চো, কেন ধর্নায় বসেছেন সোনম ওয়াংচুক?

বাংলা হান্ট ডেস্ক : প্রতিশ্রুতির তালিকা অনেক লম্বা থাকলে বাস্তবায়ন হয়েছে গুটিকয়েকটিই। লাদাখকে দেওয়া একগুচ্ছ প্রতিশ্রুতির মধ্যে বেশিরভাগই এখন বিস্মৃত হয়েছে কেন্দ্র সরকার। এরই প্রতিবাদে গত ৬ মার্চ থেকে ২১ দিনের আমরণ অনশনে বসেছেন বিখ্যাত বিজ্ঞানী তথা পরিবেশ-মানবাধিকার কর্মী সোনম ওয়াংচুক (Sonam Wangchuck)। আর এবার অনশনের ২০ দিনের মাথায় নিজের হতাশা প্রকাশ করলেন তিনি।

   

আজ মঙ্গলবার সোনম ওয়াংচুকের এই আমরণ অনশন শেষ হওয়ার কথা। তার আগেই লে থেকে কেন্দ্রীয় সরকারকে একটার পর একটা তোপ দাগলেন তিনি। গতকাল নিজের এক্স হ্যান্ডেল থেকে তিনি জানিয়েছেন, ‘পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনের জন্য যে অনশন শুরু করেছিলাম আজ তার ২০তম দিন। আমার সঙ্গে আর তিন হাজার মানুষ অনশন করছেন। কিন্তু, সরকারের তরফে এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে কোনও শব্দ বের হল না। এটা গণতন্ত্রের পক্ষে খুবই অপমানজনক একটি বিষয়।’

এইদিন তিনি আরও বলেন, এখানকার ৯০ শতাংশ মানুষ আজ রাস্তায় নেমেছে। সকলেই কেন্দ্রের দেওয়া প্রতিশ্রুতির কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। যদিও কেন্দ্রের তরফে কোনও সাড়াশব্দ নেই। তবে দেশের মানুষ যে তাদের পূর্ণ সমর্থন জানাচ্ছে সেকথাও অস্বীকার করেননি তিনি। এইমুহুর্তে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সোনম ওয়াংচুকের সমর্থনে আওয়াজ তুলেছে আম জনতা।

আরও পড়ুন : সিকিমে ভয়াবহ ধস, অগাস্ট পর্যন্ত বিপদের আশঙ্কা! পর্যটকদের জন্য সাবধানবাণী IIT অধ্যাপকের

এইদিন ওয়াংচুক তাদের সমর্থনের জন্য সাধারণ নাগরিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেছেন, “আমি এই জাতি এবং এর নেতাদের প্রতি বিশ্বাস হারাইনি।” হতাশ হলেও তিনি বিশ্বাস রাখেন যে, তাদের এই দাবি একদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহের কাছে ঠিকই পৌঁছাবে। ওয়াংচুকের কথায়, ‘আমার এখনও বিশ্বাস আছে, তারা শীঘ্রই উপলব্ধি করবে এবং ন্যায়বিচার করবে এবং নিজেরাই সম্মানজনকভাবে দাঁড়াবে।’

‘ক্লাইমেট ফাস্ট’-এর অধীনে লাদাখির দাবিগুলি কী কী হাইলাইট করা হয়েছে?

ওয়াংচুক সংবিধানের ষষ্ঠ তফসিলের অধীনে লাদাখকে পৃথক রাজ্যের মর্যাদা দেওয়ার পাশাপাশি লেহ এবং কার্গিল জেলার জন্য পৃথক লোকসভা আসন, একচেটিয়া জমি এবং চাকরির অধিকার এবং একটি পাবলিক সার্ভিস কমিশন প্রতিষ্ঠার দাবি তুলেছেন। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে জম্মু ও কাশ্মীর থেকে বিভক্ত করার পরে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের (UT) মর্যাদা প্রদান করে।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর