TMC কাউন্সিলরের বাড়িতে ডাকাতি, স্ত্রীয়ের হাত-পা বেঁধে…! খড়গপুরের ঘটনায় চাঞ্চল্য

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ খোদ তৃণমূল কাউন্সিলরের বাড়িতেই ডাকাতি! কাউন্সিলরের স্ত্রীয়ের হাত-পা বেঁধে চলল লুটপাট। ঘটনাটি ঘটেছে খড়গপুর পৌরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলরের বাড়িতে। তৃণমূল কাউন্সিলর (TMC Councilor) বনথা মুরলী সেই সময় বাড়ি ছিলেন না। তাঁর স্ত্রী একাই ছিলেন বলে খবর। অভিযোগ, মুখে মাস্ক বেঁধে চারজন দুষ্কৃতি কাউন্সিলরের খোঁজ করে বাড়িতে এসেছিলেন। এরপরেই চলে তাণ্ডব! ঘটনার জেরে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

   

জানা যাচ্ছে, মঙ্গলবার রাত ৯:৩০ নাগাদ ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বনথা মুরলীর রেল কোয়ার্টারে ঢুকে পড়েন চারজন অজ্ঞাত পরিচয় যুবক। প্রত্যেকের হাতে আগ্নেয়াস্ত্র এবং মুখে মাস্ক বাঁধা ছিল। কাউন্সিলর (Councilor) সেই সময় পার্টি অফিসে ছিলেন। বাড়িতে একাই ছিলেন বলে জানিয়েছেন তাঁর স্ত্রী। দুষ্কৃতিরা বাড়িতে ঢুকে প্রথমে কাউন্সিলর-পত্নী বনথা বিজয়ার হাত-পা বেঁধে দেয়। এরপর শুরু হয় লুট। তাঁর গায়ের গয়নাও খুলে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুনঃ টিকিট দেয়নি TMC, ছুটে যান দিল্লি! এবার কি BJP-তে যোগ? জানালেন মৌসম নূর

এরপর নগদ টাকা এবং আলমারিতে থাকা গয়নাও নিয়ে নেয় দুষ্কৃতিরা। বনথা বিজয়া জানিয়েছেন, দুষ্কৃতিরা বাড়িতে এসে প্রথমে তাঁর স্বামীর খোঁজ করে। বাড়ির সামনে এবং পিছনের দিক থেকে ঢুকেছিল তাঁরা। সকলের মুখ মাস্ক দিয়ে ঢাকা ছিল এবং হাতে ছিল আগ্নেয়াস্ত্র।

বনথা বিজয়ার কথায়, বাড়িতে ঢুকেই দুষ্কৃতিরা তাঁকে গয়না খুলে দেওয়ার কথা বলে। কথার অমান্য করলে গুলি চালানোর হুমকিও দেওয়া হয়। এরপর তাঁর হাত-পা বেঁধে বাড়িতে লুট চালানো হয়। এরপর সমস্ত টাকা, পয়সা, গয়না নিয়ে দুষ্কৃতিরা চলে যায় বলে জানিয়েছেন কাউন্সিলর-পত্নী। খোদ কাউন্সিলরের বাড়িতে এমন ঘটনা ঘটায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।

kharagpur robbery in tmc councilor house

এদিকে যার বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে তথা ১৫ নম্বরের ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বনথা মুরলী এলাকায় দুষ্কৃতিদের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধির কথা স্বীকার করে নেন। তিনি বলেন, ‘এলাকায় দুষ্কৃতিদের দৌরাত্ম্য বাড়ছে। আমার বাড়িতে যা ঘটেছে তার চেয়ে আরও বড় কিছু হতে পারতো। পুলিশকে জানানো হয়েছে। পুলিশ পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। তা সত্ত্বেও দুষ্কৃতিদের থামানো যাচ্ছে না’।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর