জাতীয় সঙ্গীতের আদলে রাজ্য সঙ্গীত! পশ্চিমবঙ্গ দিবসের পর আগামী বছর নতুন উপহার পাচ্ছে রাজ্যবাসী

বাংলা হান্ট নিউজ ডেস্কঃ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে (Mamata Banerjee) পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর বেশকিছু অদ্ভুত সিদ্ধান্ত দেখেছে পশ্চিমবঙ্গবাসী। উদাহরণস্বরূপ রাস্তার সিগন্যালে গাড়ি দাঁড়ানোর পর রবীন্দ্র সঙ্গীত চালানোর চিন্তাভাবনার বিষয়টিকে দেখা যেতে পারে। দলের নিন্দুকরা এই ব্যাপারগুলিকে ‘মাথার দোষ’ এবং শুভচিন্তকরা ভাবনাগুলিকে মুক্তমনা চিন্তাভাবনা হিসেবে দেখে থাকেন। এবার সেই চিন্তার বশবর্তী হয়ে একটি অদ্ভুত সিদ্ধান্তর কথা জানালেন বিধানসভার স্পিকার। প্রতিবেদনের বাকি অংশে সেই সিদ্ধান্তটিকে ব্যাখ্যা করে সেটির বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করা হলো।

   

পশ্চিমবঙ্গ দিবসের কথা আগেই ঘোষণা হয়েছিল। এবার ঘোষণা হলো আর এক অভিনব বিষয়ের কথা। জাতীয় সঙ্গীতের অনুকরণে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জন্য নির্মাণ করা হবে একটি রাজ্য সঙ্গীত! ২১শে আগস্ট বিধানসভায় এমনটাই ঘোষণা করেছেন স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। কেমন হবে এই রাজ্য সঙ্গীতের বিষয়টি!

এই প্রসঙ্গে বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, “দেশের বেশ কয়েকটা রাজ্যের নিজস্ব সঙ্গীত রয়েছে। কিন্তু আমাদের রাজ্যে তেমনটা তৈরি করার কথা আজ অবধি ভাবা হয়নি। একটা জাতীয় সঙ্গীত গোটা দেশের জন্য প্রযোজ্য হয় তবে অন্য রাজ্যের ক্ষেত্রে নিজের সঙ্গীতগুলির মতোই পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে যদি এমন কিছু করা যায়, তা হলে ভালই হবে।”

মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, মণিপুর, আসাম ও আরও কিছু রাজ্যে ‘রাজ্য সঙ্গীতের’ অস্তিত্ব বর্তমান। তবে কোন সঙ্গীতটি রাজ্য সঙ্গীত হিসেবে নির্বাচিত হবে সেই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কর্তৃপক্ষের মাথায় যে গানগুলোর কথা এসেছে সেগুলিকে বাছাইয়ের ক্ষেত্রে একটি কমিটি গঠন করা হতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে।

আরও পড়ুন: একটা ডার্বি জিতে লাফানোর কিছু নেই! মোহনবাগানের পক্ষ নিয়ে ইস্টবেঙ্গল কর্তাকে ধমক মমতার

এরই মধ্যে ১ লা বৈশাখকে পশ্চিমবঙ্গ দিবস হিসেবে পালন করার অনুমোদন পাওয়ার বিষয়টি সুপারিশ করা হয়েছে বিধানসভায়। কমিটি এই বিশেষ দিনটি বেছে নেওয়ার পর সেটিকে চূড়ান্ত করার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে অনুমোদনের আশা করছে। তিনি রাজি হলেই আগামী বছর থেকে এই বিশেষ দিনটি পশ্চিমবঙ্গ দিবস হিসেবে পালন করা যেতে পারে।

 

সম্পর্কিত খবর