বাকি ছিল ১০ হাজার, টিউশন ফি দিতে না পারায় হাঁটুর বয়সী ছাত্রীকে বিয়ে করে নিলেন শিক্ষক

বাংলা হান্ট ডেস্ক : এ কথা ছোটো থেকে শুরু করে কম বয়সী বুড়ো পর্যন্ত প্রত্যেকেই জানে, যে শিক্ষক (Teacher) আমাদের সঠিক পথে চলার এবং শিক্ষার আলো দেখায়। সেই শিক্ষকই ছাত্র-ছাত্রীদের (Student) সমাজে উপযুক্ত করে তোলে। একটা ভালো পড়ুয়ার ভবিষ্যৎ তৈরি করার পিছনে শিক্ষকের বড় ভূমিকা থাকে। কিন্তু এই শিক্ষকই যখন ভক্ষক হয়ে ওঠে তখন ব্যাপারটা কেমন জানি বদলে যায়। এমনি এক ভিডিও ভাইরাল (viral) হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। জানতে হলে বিস্তারিত প্রতিবেদনটির উপর নজর রাখুন।

   

এই ভিডিও দেখলে আপনার চোখ কপালে উঠবে। আবারও সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) এক নিন্দনীয় এবং লজ্জাজনক ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। সেই ভিডিওটিতে রয়েছে এক শিক্ষক এবং তার ছাত্রী। যদিও এরকম ঘটনা নতুন নয়। এর আগেও দেখা গেছে সোশ্যাল মিডিয়াতে নম্বর বাড়িয়ে দেওয়ার বিনিময়ে ছাত্রর কাছে টাকা নিয়েছেন শিক্ষক।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ায় পর মানুষের মনে শোরগোল ফেলে দিয়েছে। ঘটনাটির মধ্যে দেখা যায় ছাত্রীটি গরিব সে তার টিউশন ফি (Tuition Fees) দিতে না পারার জন্য তাকে তার জীবনের সর্বোচ্চ মূল্যটি দিতে হয়েছে। এই ঘটনা ইনস্টাগ্রামে প্রথমে ভাইরাল হয়। তারপর আসতে আসতে এটি সোশ্যাল মিডিয়ার অন্যান্য প্ল্যাটফর্মেও ভাইরাল হতে দেখা গিয়েছে।

ভিডিওটিতে দেখানো হয়েছে, শিক্ষক এবং ছাত্রী দুজনেই পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আছেন। আর ছাত্রীর মাথার সিঁথি সিঁদুরে ভরা। এমন বিয়ের কারণ জানলে অবাক হবেন। আসলে ছাত্রীটি শিক্ষকের কাছে টিউশন পড়তো। কিন্তু সে টিউশনের ফি দিতে পারতো না। ফলে অনেকটা সময় পেরিয়ে গেছিলো। সে তার ফি মিটাতে পারেনি। এখন সেটা এসে দাঁড়িয়েছে প্রায় ১০,০০০ টাকার মতো। তাই তাদের নাকি এই সিদ্ধান্ত।

ooo

শিক্ষক বলেছেন, ‘১০,০০০ টাকা ও আমাকে দিতে পারবে না। এটা জানার পর আমরা অনেক ভাবনাচিন্তা করি। তারপর আমরা একে অপরকে বিয়ে (Marry) করে নি’। শিক্ষকের দাবি এটাই যে টাকা না দিতে পারার জন্য সে তার ছাত্রীকে বিয়ে করেছেন। এছাড়া তিনি একথাও জানিয়েছেন, ‘ও এখন আমার আর ছাত্রী না ও আমার স্ত্রী’।