জলাধারে পড়েছে দেড় লাখের ফোন! সরকারি অফিসারের আবদারে “অপচয়” ২১ লক্ষ লিটার জল

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক: আমরা সবাই জানি যে, “জলের (Water) অপর নাম হল জীবন।” অর্থাৎ জল ছাড়া জীবের পক্ষে কোনোমতেই বেঁচে থাকা সম্ভব নয়। এমতাবস্থায়, বর্তমান সময়ে জলের অপচয় রুখতে বিভিন্ন সতর্কতামূলক প্রচার এবং ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি আমরা প্রত্যক্ষ করেছি। তবে, এবার এমন একটি ঘটনা সামনে এসেছে যেটি জানার পর রীতিমতো চক্ষু চড়কগাছ হয়ে যাবে সকলের।

জানা গিয়েছে, এবার একটি ফোনকে খুঁজতেই রীতিমতো একটি জলাধার ফাঁকা করে দেওয়া হল। হ্যাঁ, প্রথমে শুনে বিষয়টি অবিশ্বাস্য মনে হলেও এবার ঠিক এই ঘটনাই ঘটেছে। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, প্রায় চারদিন যাবৎ ছত্তিশগড়ের পাখাঞ্জুরের পারালকোট জলাধারে ওই ফোন খোঁজার “অপারেশন” চালানো হয়। গত সোমবার থেকে এটি শুরু হওয়ার পর বৃহস্পতিবার ফোনটির হদিশ মেলায় এই সন্ধানপর্ব শেষ হয়।

এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি যে, পাখাঞ্জুরের বাসিন্দা তথা বর্তমানে পাখাঞ্জুরের ফুড ইন্সপেক্টর হিসেবে কর্মরত রাজেশ বিশ্বাস একটি পার্টি উদযাপন করতে তাঁর বন্ধুদের সাথে পারালকোট জলাধারে গিয়েছিলেন। সেই সময়ে তাঁর ১ লক্ষ ৫৪ হাজার টাকার মূল্যের Samsung S23 Ultra ফোনটি পারালকোট জলাধারের কাছে পড়ে যায়।

এমতাবস্থায়, সোমবার সকালেই পারলকোট জলাধারে পৌঁছে যান রাজেশ। তারপর তিনি তাঁর ফোনটি খুঁজে বের করার জন্য আশেপাশের দোকানদারদের কাজে লাগান এবং গ্রামে থাকা ডুবুরিদেরও ফোন করে জল থেকে ফোনটি খুঁজে বের করার জন্য অভিযান শুরু করেন। এদিকে, ডুবুরিরা ব্যর্থ হলে জল অপসারণের জন্য নিয়ে আসা হয়ে পাম্পও। ক্রমাগত জল বের করে ওই দামি ফোনটি উদ্ধার করা হয়।

জেনে অবাক হবেন যে, এই পুরো ঘটনায় প্রায় ২১ লক্ষ লিটার জল অপচয় হয়েছে। শুধু তাই নয়, এই জলকে কাজে লাগিয়ে কৃষকরা প্রায় এক হাজার একর জমিতে রোপণ করা ফসলে সেচকার্য করতে পারতেন। এমন পরিস্থিতিতে ওই এলাকার শতাধিক কৃষক চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। তবে, এর আগেও রাজেশ বিশ্বাস তাঁর বিতর্কিত কাজকর্মের কারণে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছেন। নিজের রেশন কার্ডের চালে গোলযোগের ঘটনায় একবার বরখাস্তও হয়েছেন। তবে, এবার ফোন উদ্ধার করতে গিয়ে আবারও লাইমলাইটে এলেন তিনি।

whatsapp image 2023 05 26 at 7.55.21 pm

এদিকে, এভাবে টানা চার দিন ধরে জল নিষ্কাশনের খবর পেয়েই সেখানে উপস্থিত হন জলসম্পদ দফতরের এসডিও। ঘটনাস্থলে পৌঁছে জল নিষ্কাশনের কাজ তিনি বন্ধ করলেও ততক্ষণে ২১ লক্ষ লিটার জল অপচয় হয়ে যায়। এই বিষয়ে ছত্তিশগড়ের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী টুইট করে নিজের প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন। পাশাপাশি ওই আধিকারিককে তাঁর পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলেও জানা গিয়েছে।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর