চীনা সীমান্তে সড়ক নির্মানের গতি বাড়াল ভারত, হেলিকপ্টারে দ্বারা পৌঁছানো হল মেশিন

বাংলাহান্ট ডেস্কঃ উত্তরাখণ্ডের (Uttarakhand) জোহর উপত্যকা হিমালয়ের একটি অত্যন্ত দুর্গম জায়গা। যেখানে ভারত (india) -চীন (china) সীমান্তের নিকটে কৌশলগত গুরুত্বের রাস্তা নির্মাণকে ত্বরান্বিত করতে সফল হয়েছে। সড়ক নির্মাণে ব্যবহৃত মেশিনগুলি হেলিকপ্টারের মাধ্যমে সরবরাহ করা হয়েছে। কারণ তাছাড়া আর অন্য কোনও পথ নেই।

   

বিআরও-এর চিফ ইঞ্জিনিয়ার বিমল গোস্বামী বলেছেন,  ২০১৯ সালে বহু প্রচেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পরে, সীমান্ত সড়ক সংস্থা সম্প্রতি হেলিকপ্টারগুলির মাধ্যমে সড়ক নির্মাণে ব্যবহৃত ভারী মেশিন পরিবহনে সফল হয়েছে। এটি রাস্তা নির্মাণ আরও দ্রুত করা যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

ভারী পাথর কাটার মেশিন না পাওয়ায় ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তাটি নির্মাণে দেরি হচ্ছিল। হিমালয়ের জোহর উপত্যকায় মুন্সিয়ারি-বোগদিয়ার-মিলাম রোড নির্মিত হচ্ছে। এটি উত্তরাখণ্ডের পিঠোরাগড় জেলায় আসে। এই রাস্তাটি ভারত-চীন সীমান্তের শেষ রাস্তাকে সংযুক্ত করবে।

গোস্বামী বলেছিলেন যে, গত বছর বহুবার ব্যর্থ হওয়ার পরে আমরা গত মাসে হেলিকপ্টার থেকে লাপসায় ভারী মেশিন পরিবহনে সাফল্য পেয়েছি। আমরা আশা করছি এই চ্যালেঞ্জিং রুটে পাথর কাটার কাজ আগামী তিন মাসের মধ্যে শেষ হবে। এখন ২২ কিলোমিটার রাস্তার পাথর কাটা আরও সহজ হবে। বিআরওর প্রধান প্রকৌশলী বলেছিলেন যে, ২০১২ সালে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছিল। এর জন্য ৩২৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। তিনি আরও বলেছিলেনযে,  উভয় দিক থেকে রাস্তাটি নির্মিত হচ্ছে এবং ২২ কিমি বাদে ৪০ কিলোমিটারে পাথর কাটার কাজ শেষ হয়েছে।

সম্পর্কিত খবর