‘আপনি কলকাতা হাইকোর্টে যান’, সুকান্ত মজুমদারকে কেন এমন বলল সুপ্রিম কোর্ট?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদারকে (Sukanta Majumdar) হাইকোর্টে (High Court) যাওয়ার পরামর্শ দিল সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)। গত জানুয়ারি মাস থেকে অশান্ত হয়ে ওঠে সন্দেশখালি। সন্দেশখালিতে নিগৃহীতা মহিলার পরিচয় ফাঁস করার অভিযোগে পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের বিরুদ্ধে পদক্ষেপের দাবি জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন সুকান্ত।

শীর্ষ আদালতে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছিলেন সুকান্ত। তার অভিযোগ ছিল, সন্দেশখালির এক নিগৃহীতার পরিচয় ফাঁস করে দিয়েছে রাজ্য পুলিশ। পুলিশ সোশ্যাল মিডিয়ায় তুলে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে সন্দেশখালির ওই মহিলার পরিচয় সামনে এনেছে। সুকান্ত আদালতে জানান, ওই মহিলা সন্দেশখালিরই শাসক দলের এক নেতার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেছিলেন।

আইন ভঙ্গ করেছে রাজ্য পুলিশ। নিজের এক্তিয়ারের বাইরে গিয়ে মহিলাকে বিবৃতি দিতে বাধ্য করেছে। এইসব অভিযোগ তুলে পুলিশের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অপরাধের মামলা দায়ের করার আর্জি জানান। তবে শুক্রবার সেই মামলার শুনানিতেই সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল, কলকাতা হাই কোর্টই এই বিষয়টি খতিয়ে দেখবে।

এদিন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি বেলা এম ত্রিবেদী ও বিচারপতি পঙ্কজ মিত্তলের ডিভিশন বেঞ্চ এই মামলা ওঠে। বিচারপতি প্রশ্ন তোলেন ‘এখানে কিভাবে জনস্বার্থ মামলা হতে পারে? সুকান্তের আইনজীবী বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায়ে বলা হয়েছে, কোনও নিগৃহীতা মহিলার পরিচয় প্রকাশ্যে আনা যাবে না। তবে সুকান্তর যুক্তিকে মান্যতা দেয়নি আদালত।

Sukanta Majumdar,Calcutta High Court,Supreme Court,Sandeshkhali Case,সুকান্ত মজুমদার,সুপ্রিম কোর্ট,কলকাতা হাইকোর্ট,বিজেপি,সন্দেশখালি,Bangla,Bengali,Bengali News,Bangla Khobor,Bengali Khobor

আরও পড়ুন: DA অতীত! সরকারি কর্মীদের ৬০০০ টাকা করে দেবে রাজ্য সরকার, বিজ্ঞপ্তি জারি করল নবান্ন

আইনজীবীর উদ্দেশে বিচারপতিরা বলেন, ‘আপনাদের অভিযোগ, নির্যাতিতার পরিচয় সোশ্যাল মিডিয়ায় ফাঁস হয়ে গিয়েছে। এই মামলা শোনার জন্য হাইকোর্ট ভাল জায়গা।’ বিচারপতিরা জানান, এ ক্ষেত্রে একমাত্র প্রশ্ন হল মহিলার পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে কি না। যা শোনার জন্য জন্য হাই কোর্ট উপযুক্ত স্থান।

Sharmi Dhar
Sharmi Dhar

শর্মি ধর, বাংলা হান্ট এর রাজনৈতিক কনটেন্ট রাইটার। উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৩ বছর ধরে সাংবাদিকতা পেশার সঙ্গে যুক্ত ।

সম্পর্কিত খবর