ভোটের আগে মাস্টারস্ট্রোক অভিষেক বানার্জীর, ৭০ হাজার বৃদ্ধাকে দেওয়া হবে বিশেষ সুবিধা!

বাংলা হান্ট ডেস্ক : মহুয়া মৈত্র বিতর্কের পর থেকেই সরগরম হয়ে উঠেছে রাজ্য রাজনীতি। বিরোধীরাও সরব হয়ে উঠেছে শাসকদলের বিরুদ্ধে। বিগত কয়েকদিন ধরেই ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কথা বলছে আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকী থেকে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। আর আজ শুক্রবার কার্যত তারই পাল্টা জবাব দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee)।

এইদিন ফলতায় বস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে অভিষেক (Abhishek Banerjee) বড় চাল দিলেন। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের আগে এটা নাকি তৃণমূলের বড় মাস্টারস্ট্রোক হতে চলেছে। উল্লেখ্য, বিগত কয়েকদিনে অনেকেই তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক ব্যানার্জির কাছে দাবি করেন যে, বৃদ্ধা ভাতা ঠিকঠাক দেওয়া হচ্ছেনা। জানা যাচ্ছে, সেই সংখ্যাটা নাকি প্রায় ৭০ হাজার।

   

এইদিন ফলতার ফতেপুর হাইস্কুলের ফুটবল মাঠের সভা থেকে অভিষেক ঘোষণা করেন, ‘‌২০২৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৭০ হাজার বৃদ্ধ মহিলাকে আর্থিক সহায়তা দেবে তৃণমূল কংগ্রেস। সরকার যখন দেবে সেটা আলাদা বিষয়। জনপ্রতিনিধি হিসাবে আমরা এই কাজ করব। কারণ আমাদের একটাই ধর্ম, মানবধর্ম। মানুষের মধ্যে বিভাজন, টাকা আটকে রাখা, দাঙ্গা লাগানো নয়। এখানে ধর্মে বিভাজন করতে পারেনি। আমি যতদিন থাকব করতে পারবে না বিজেপি।’‌

আরও পড়ুন : দেড় বছর পরেও মেলেনি ফ্ল্যাট! পুরস্কারের নামে প্রতারণার শিকার ‘দাদাগিরি’ সিজন ৯-র বিজেতা মইনুদ্দিন

পাশাপাশি বিজেপির উদ্দেশ্যে তীব্র কটাক্ষ শানিয়ে অভিষেক বলেন, ‘‌২০১৯ সালে অনেকে বলেছিল, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে গিয়েছে। ২০১৪ সালে যত ভোটে জিতেছিলাম তার থেকে বেশি ভোটে জিতেছি। তাই ২০২৪ সালে সেই সংখ্যাও পার করতে হবে আপনাদের। আমার সীমাবদ্ধ ক্ষমতা অনুযায়ী আর্থিক সাহায্য করব। রাজ্য সরকারের সাহায্যে নয়। মানুষ পরিষেবা পেয়েছে বলেই আজ ডায়মন্ড হারবার মডেল বলে। কেন্দ্র হাজার চেষ্টা করলেও ভাতে মারতে পারবে না। টাকা আটকে রেখে শিক্ষা দেবে ভাবলে ভুল করবে।’‌

আরও পড়ুন : পানিহাটিতে হাড়হিম করা ঘটনা, বিষ্ফোরণে উড়ল যুবকের হাত! তীব্রতা দেখে চাঞ্চল্য এলাকায়

কেবল বিজেপিই নয়, এইদিন অভিষেকের নিশানায় ছিল সিপিএমও। নওশাদ সিদ্দিকি নিজে ডায়মন্ড হারবার থেকে দাঁড়ানোর কথা বলেছেন। শুভেন্দু জানিয়েছেন, তিনি নিজে না হলেও অন্য কাউকে দিয়ে অভিষেককে হারাবেন। এই প্রতিটা কথার প্রতুত্তর হিসেবে অভিষেক ব্যানার্জি বলেন, ‘‌অনেকে ডায়মন্ড হারবার থেকে দাঁড়াবার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। সেটা ভাল। এটাই তো গণতন্ত্র। গুজরাট, উত্তরপ্রদেশের নেতাও এখানে দাঁড়াতে পারেন। এবার ফলতার জয়ের ব্যবধান ৭০ হাজার করতে হবে। ওরা আবার আসবে টাকা দিতে লোকসভা নির্বাচনের আগে। তখন বড় ফুলের থেকে টাকা নিয়ে ছোট ফুলে ভোট দেবেন। সিপিএমও চেষ্টা করেছিল। করতে পারেনি। সংখ্যালঘু প্রার্থী দাঁড় করিয়ে বিভাজন করতে চেয়েছিল। সেটা করতে পারেনি। আমি বিশ্বাস করি আগামী দিনেও আপনারা করতে দেবেন না। ২০২৪ সালে চার লক্ষ ভোটে জেতাতে হবে।’‌

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর