টাইমলাইনভারত

ত্রিপুরায় ফের বাজিমাত বিপ্লবের, ভোটের আগেই ৮৬ শতাংশ আসন বিজেপির ঝুলিতে

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ ২০১৮ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ২৫ বছরের বাম শাসন কাটিয়ে ত্রিপুরায় ক্ষমতায় এসেছিল বিজেপি। আর এরপর থেকেই ত্রিপুরা থেকে একে একে বিলুপ্ত হয়ে গেছে কমিউনিস্টরা। রাজ্যের আরেক বিরোধী দল কংগ্রেস সামান্য কিছু মাথা চারা দিয়ে উঠলেও তেমন সুবিধা করতে পারেনি। ত্রিপুরায় কংগ্রেসের নতুন সভাপতি বানানো হয়েছে মহারাজার ছেলেকে, কিন্তু ত্রিপুরাবাসী রাজ পরিবার বাদ দিয়ে সাধারণ মানুষকে  নিজের নেতা বেছে নিয়েছেন।

গত লোকসভা ভোটেও ত্রিপুরাতে ক্লিন সুইপ করেছিল বিজেপি। আর এবার পঞ্চায়েত ভোটেও ত্রিপুরাতে বিজেপির জয়জয়কার। ত্রিপুরার পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই ৮৬ শতাংশ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়লাভ করেছে বিজেপি। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই ৬৬৪৬ আসনের মধ্যে ৫৫০০ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জতে গেছে বিজেপি। তবে, এরাজ্যের পঞ্চায়েত ভোটের মতো বন্দুকের জোরে না। ত্রিপুরায় বিরোধীরা প্রার্থী খুঁজতেই ব্যার্থ হয়েছেন। বিরোধী শিবিরে কেউ প্রার্থী হবে না বলেই, ত্রিপুরার ৮৬ শতাংশ আসনে পঞ্চায়েত ভোটের আগে জয়লাভ করেছে বিজেপি

ত্রিপুরার ৩৫ টি পঞ্চায়েত সমিতির ৪১৯ টি আসনের মধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজেপি ৩৩৭ টি আসনে জয়লাভ করেছে। এছাড়াও ৮ টি জেলা পরিষদের ১১৬ টি আসনের মধ্যে, বিজেপির ঝুলিতে আগে ভাগেই ৩৭ টি আসন চলে এসেছে। ৫৯১ টি গ্রাম পঞ্চায়েতে ৬১১১ টি আসনের মধ্যে বিজেপি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৫২৭৮ আসনে জয়লাভ করেছে।

ত্রিপুরা রাজ্যে সিপিএম, কংগ্রেস সমেত বাকি বিরোধী দল গুলো বেশিরভাগ আসনেই প্রার্থী দিতে অক্ষম হয়েছে। এমনকি বেশ কিছু আসনে প্রার্থীরা নিজে থেকেই মনোনয়ন বাতিল করেছে। রাজ্যে শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল জানান, ২৫ বছরে বামেদের অপশাসনে তিতিবিরক্ত হয়ে উঠেছিল ত্রিপুরাবাসী, আর এই জন্যই এবার বামেরা পঞ্চায়ের আসনে লড়াই করা জন্য প্রার্থী খুঁজে পায়নি। বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর ত্রিপুরার চিত্র অনেক বদলেছে। মানুষ এই রাজ্যে সিপিএমকে আর চায়না। মানুষ চায় স্বাধীন ভাবে বাঁচতে আর উন্নয়ন। সেটা একমাত্র বিজেপি দিয়েছে।

 

Back to top button
Close