দুই হিন্দু শিশুর গলা কেটে রক্ত পান! UP পুলিশের এনকাউন্টারে খতম অভিযুক্ত সাজিদ

বাংলা হান্ট ডেস্ক : ভরসন্ধ্যায় ভয়াবহ হত্যাকাণ্ড যোগীরাজ্যে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বদায়ুনের (Badaun) বাবা কলোনিতে দুই হিন্দু শিশুর গলা কেটে রক্ত পান করল সাজিদ নামক এক ব্যক্তি। মর্মান্তিক এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র অশান্তি ছড়িয়েছে এলাকায়। শুরু হয়েছে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা। পরিস্থিতি সামাল দিতে বিপুল সংখ্যক পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে এলাকায়।

   

সূত্রের খবর, নৃশংস শিশু হত্যার এই ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার উত্তরপ্রদেশে (Uttar Pradesh) বদায়ুনের বাবা কলোনিতে। গতকাল সন্ধ্যা নাগাদ বছর ৩০ এর যুবক সাজিদ পৌঁছান বিনোদ কুমার সিং-র বাড়িতে। বাড়িতে ছিলেন বিনোদের স্ত্রী ও তিন সন্তান। স্থানীয় সূত্রে খবর, তারা পূর্বপরিচিত ছিলেন এবং বাড়িতেও আসা যাওয়া লেগে থাকত। অন্যদিনের মত এইদিনও বাড়িতে এসে বিনোদের স্ত্রীকে চা করে দেওয়ার অনুরোধ করে সাজিদ।

বিনোদের স্ত্রী চা বানাতে গেলে সাজিদ চলে যান ছাদে। সেখানে বিনোদের তিন সন্তান আয়ুষ(১১), আহান(৭) ও পীযূষ(৬) খেলাতে মত্ত ছিল। কোনকিছু বুঝে ওঠার আগেই এই তিন নিস্পাপ শিশুর উপর চড়াও হয় সাজিদ। আয়ুষ এবং আহানের ধড় থেকে মাথা আলাদা করে দেওয়ার পর পিয়ুষের গলায় কুড়ুল মারে সে। তবে পিয়ুষ কোনভাবে সেখান থেকে পালাতে সক্ষম হয়‌।

আরও পড়ুন : ভোট প্রচার নাকি বক্সিং রিং? নিশীথ-উদয়নের হাতাহাতিতে মাথা ফাটল SDPO-র, অগ্নিগর্ভ দিনহাটা

বাচ্চাদের তারস্বরে চিৎকার শুনে লোক জড় হয়। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে পালিয়ে যায় সাজিদ। চিৎকার শুনে ছাদে যান বিনোদের স্ত্রী। দুই সন্তানের রক্তাক্ত নিথর দেহ পড়ে থাকতে দেখে তিনিও অজ্ঞান হয়ে পড়েন বলে খবর। স্থানীয়রা তড়িঘড়ি সকলকে নিয়ে হাসপাতালে গেলে আয়ুষ এবং আহানকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। সূত্রের খবর, পিয়ুষ এখনও গুরুতর অবস্থায় চিকিৎসাধীন। এদিকে উন্মত্ত জনতা সাজিদের সেলুন জ্বালিয়ে দেয়।

আরও পড়ুন : কৃষ্ণনগরে মর্যাদার লড়াই! মহুয়ার বিরুদ্ধে বিজেপি প্রার্থী স্বয়ং রাজমাতা? বিরাট চমক

খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে হাজির হয় স্থানীয় পুলিশ‌। কিছুক্ষণের মধ্যেই গ্রেফতার করা হয় অভিযুক্ত ব্যক্তি সাজিদকে। তবে থানায় নিয়ে যাওয়ার পথে পুলিশ কর্তাদের উপর চড়াও হয় সাজিদ। পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়, পাল্টা গুলি চালাতে বাধ্য হয় পুলিশও। এনকাউন্টারে মৃত্যু হয় সাজিদের। আপাতত খুনের কারণ খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর