এবার UFO-র হানা ভারতের এই বিমানবন্দরে? মুহূর্তের মধ্যে স্তব্ধ পরিষেবা, আতঙ্কের সম্মুখীন যাত্রীরা

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক: এবার একটি অত্যন্ত চাঞ্চল্যকর খবর সামনে এসেছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা গিয়েছে, গত ১৯ নভেম্বর অর্থাৎ রবিবার দুপুর ২ টো ৩০ মিনিট নাগাদ মণিপুরের (Manipur) ইম্ফল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে একটি UFO (Unidentified Flying Object) দেখা গিয়েছে বলে দাবি উঠতে থাকে। এমনকি, এই কারণে দীর্ঘক্ষণ বিমান চলাচলও ব্যাহত হয়।

জানা গিয়েছে, ওই রহস্যজনক বস্তুটি দেখার পর একাধিক বিমান বাতিল করা হয়েছে। এছাড়াও দু’টি বিমানের রুট পরিবর্তন করা হয়েছে। পাশাপাশি, তিনটি বিমান কিছুটা দেরি করে সফর শুরু করে বলেও জানা গিয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে, সামগ্রিক সমস্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরে প্রায় ৩ ঘণ্টা পর ফের বিমান চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এদিকে, এই বিষয়টির পরিপ্রেক্ষিতে বিমানবন্দরের নির্দেশক চিপেমি কিশিং-এর জারি করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, “ইম্ফল নিয়ন্ত্রিত আকাশসীমার মধ্যে একটি অজ্ঞাত উড়ন্ত বস্তু দেখার কারণে, দু’টি বিমানের উড়ানকে ডাইভার্ট করা হয়েছে এবং তিনটি বিমানের প্রস্থানের সময়কে বিলম্বিত করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের অনুমোদন পাওয়ার পরই ফের বিমান চলাচল ফ্লাইট শুরু হয়।”

আরও পড়ুন: ভারতীয় রেলে চাকরির সুযোগ! বিপুল শূন্যপদে নিয়োগের জন্য জারি বিজ্ঞপ্তি, এভাবে করুন আবেদন

পাশাপাশি, এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের এক আধিকারিক এই বিষয়ে জানিয়েছেন যে, রবিবার দুপুর ২ টো ৩০ মিনিট নাগাদ সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের (CISF) কাছ থেকে একটি বার্তা আসে। যেটিতে জানানো হয়েছিল যে, বিমানবন্দরের কাছে একটি UFO-র খোঁজ মিলেছে।

এরপরে, IAF-এর পূর্বাঞ্চলীয় এয়ার কমান্ড জানায়, “IAF ইম্ফল বিমানবন্দর থেকে ভিজ্যুয়াল ইনপুটগুলির ওপর ভিত্তি করে তার এয়ার ডিফেন্স রেসপন্স মেকানিজমকে সক্রিয় করে। তারপর সেই ছোট বস্তুটিকে আর দেখা যায়নি।” প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে, ইম্ফলের যে বিমানবন্দরে ওই রহস্যজনক বস্তুটিকে পশ্চিম দিকে যেতে দেখা গেছে সেই বিমানবন্দরের নাম হল বীর টিকেন্দ্রজিৎ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর। এদিকে, UFO সম্পর্কিত তথ্য পাওয়ার পর ওই বিমানবন্দরে প্রায় তিন ঘণ্টা ধরে তিনটি বিমানকে অবতরণ করতে দেওয়া হয়নি। যার ফলে বিপুলসংখ্যক যাত্রী বিমানবন্দরে আটকা পড়েন।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর