বিজ্ঞানীরা পেলেন বড় সন্ধান! আবিষ্কার হল ১২.৫ কোটি বছর আগের ডাইনোসরের নতুন প্রজাতির

বাংলা হান্ট ডেস্ক: কোটি কোটি বছর আগে পৃথিবীতে দাপিয়ে বেড়াত ডাইনোসররা (Dinosaur)। তারা তখন সবচেয়ে বড় জীব হিসেবে বিবেচিত হত। মনে করা হয়, কোটি কোটি বছর আগে গ্রহাণুর সংঘর্ষের ফলে পৃথিবীতে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল যে শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়া কষ্টকর হয়ে পড়ে এবং গাছ-গাছালিও পৃথিবীতে ধ্বংস হয়ে যায়। এই কারণে তারা পৃথিবী থেকে চিরতরে বিলুপ্ত হয়ে যায়। এদিকে, বিজ্ঞানীরা প্রায়শই ডাইনোসরের জীবাশ্ম খুঁজে পান। যা ওই বৃহদাকার জীবের সম্পর্কে নানান চমকপ্রদ তথ্য সামনে আনে।

   

এবার ব্রাজিলে নতুন প্রজাতির ডাইনোসরের সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। সেগুলি পাওয়া গিয়েছে ব্রাজিলের আরারাকুয়ারা শহরে। সেখানে একটি নতুন প্রজাতির ডাইনোসরের পায়ের ছাপ পাওয়া গেছে। যেটির পরিপ্রেক্ষিতে গবেষণার পর গবেষকরা এই সিদ্ধান্তে এসেছেন যে, ওই প্রজাতিটি এখনও পর্যন্ত রেকর্ডে ছিল না। বিবিসির রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, এই কাহিনি শুরু হয়েছিল ১৯৮০-র দশকে।

সেই সময়ে, গুইসেপ্পে লিওনার্দো নামের একজন ইতালিয় পাদরি এবং জীবাশ্মবিদ ডাইনোসরের পায়ের ছাপ আবিষ্কার করেছেন বলে দাবি করেছিলেন। সেগুলির নাম ছিল ট্র্যাকওয়ে। যদিও, সেইসময়ে বিষয়টিতে কেউ খুব একটা মনোযোগ না দিলেও লিওনার্দো তাঁর কৌতূহলের বশবর্তী হয়ে সেগুলিকে নিরাপদে রাখেন এবং বহু সন্ধানের পর ১৯৮৪ সালে ব্রাজিলের আর্থ সায়েন্সের যাদুঘরে সেগুলিকে হস্তান্তর করেন। সেখানে ওই বিষয়ে আরও পরীক্ষা করা হয়। এদিকে, পুঙ্খানুপুঙ্খ খোঁজ এবং ডাইনোসরের অন্যান্য প্রজাতির সাথে তুলনা করার পরে, একটি চমকপ্রদ সত্য প্রকাশ পেয়েছে। সেগুলি প্রকৃতপক্ষে ডাইনোসরের পায়ের ছাপই ছিল। তবে সেগুলি এমন একটি প্রজাতির অন্তর্গত, যা এখনও রেকর্ড করা হয়নি।

আরও পড়ুন: হাওড়া হোক কিংবা শিয়ালদহ, এবার আর লেট করবে না ট্রেন! রেল নিচ্ছে এই বড় পদক্ষেপ

গবেষকরা কি জানিয়েছেন

গবেষকরা জানিয়েছেন, ওই ডাইনোসরগুলির কিছু আলাদা বৈশিষ্ট্য ছিল। তাদের লেজ ছিল অনেক লম্বা, পায়ের আঙ্গুলগুলো ছিল সরু এবং তল ছিল চওড়া। তারা অত্যন্ত চঞ্চল ছিল এবং অনুমান করা হয় যে তারা মরুভূমিতে বসবাসকারী ডাইনোসর ছিল। এছাড়াও, ওই ডাইনোসরগুলি প্রায় ১২.৫ কোটি বছর আগে পৃথিবীতে বাস করত বলেও জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: এবার গৌতম আদানির সাথে হাত মেলালেন অনিল আম্বানি! হয়ে গেল বড় ডিল, জানলে হবেন অবাক

এই প্রজাতির নাম হল Farlowichnus rapidus। যদিও এগুলি আকারে অনেকটাই ছোট ছিল। ২০২৩ সালে প্রকাশিত একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে এই ডাইনোসরগুলির মাংসাশী ছিল। যেগুলির উচ্চতা ছিল ২ থেকে ৩ ফুট। পাশাপাশি, এই আবিষ্কারটি এটাও প্রমাণ করে যে কিভাবে ডাইনোসররা পৃথিবীর পরিবর্তিত পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নিয়েছিল। গবেষণাটি ক্রিটেসিয়াস গবেষণায় প্রকাশিত হয়েছে।

1f010583 a0e8 4dcf 8379 c81489cd4f38

এদিকে, সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা আরেকটি বিশাল লম্বা গলার ডাইনোসরের জীবাশ্মর সন্ধান পেয়েছেন। যেটি ১২২ মিলিয়ন বছর আগে স্পেনে বিচরণ করত। এটি ছিল Garumbatitan morellensis নামক প্রজাতির একটি ডাইনোসর। এর জীবাশ্ম মোরেলা শহরের কাছে সান্ত’আন্তোনি দে লা ভেসপা নামক একটি জীবাশ্ম সাইটে আবিষ্কৃত হয়েছিল।