১ বছরে ৮৫৩ জনের মৃত্যুদণ্ড, ‘তেহেরানের কসাই’ রাইসির মৃত্যুর পর কে হচ্ছেন ইরানের রাষ্ট্রপতি?

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক: রবিবার ১৯ মার্চ এক ভয়াবহ হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় (Helicopter Crash) প্রাণ হারিয়েছেন ইরানের রাষ্ট্রপতি (Iran President) ইব্রাহিম রাইসি (Ebrahim Raisi) সহ আরো ৪ জন। যাঁদের মধ্যে ছিলেন সে দেশের বিদেশ মন্ত্রী হোসাইন আমিরাবদোল্লাহিয়ান। ইতিমধ্যেই জানা গিয়েছে এদিন আজারবাইজান-ইরান সীমান্তে একটি বাঁধ উদ্বোধন করতে গিয়েছিলেন রাইসি।

সেখান থেকে ফেরার পথে একটি দুর্গম পার্বত্য অঞ্চলের ওপর দিয়ে আসার পথে তাঁর হেলিকপ্টারটি মর্মান্তিক দুর্ঘটনার মুখে পড়ে। এরপর উদ্ধারকারী দল ইরানের নিখোঁজ রাষ্ট্রপতির সন্ধানে ঘন্টার পর ঘন্টা পর ঘন্টা অতিক্রম করে অবশেষে সোমবারই ওনার মরদেহ উদ্ধার করেছেন।এদিন রাইসির সাথে তাঁর হেলিকপ্টারে বিদেশমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অন্যান্য আরো কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি।

প্রসঙ্গত মৃত্যুকালীন সময়ে ইরানের রাষ্ট্রপতি ইব্রাহিম রাইসির বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। ইরানের এই প্রয়াত রাষ্ট্রপতির পরিবারে রয়েছেন তার দুই মেয়ে ২০২১ এর নির্বাচনে জিতে তিনি ইরানের ১৩ তম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার আগে অবশ্য ২০১৭-র রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে হেরে গিয়েছিলেন রাইসি। কট্টরপন্থী বলে পরিচিত রাইসিকে ইরানের আয়াতুল্লাহ খোমেনি এবং আয়াতুল্লাহ খামেনি উভয়ের ঘনিষ্ঠ মনে করা হতো।

Raisi 3

একটা সময় রাইসি ইরানের প্রধান বিচারপতিও ছিলেন। তবে রাইসির মৃত্যুর পর এবার তার জায়গায় আগামী দিনে কে নেতৃত্ব দেবেন তা নিয়েই এই মুহূর্তে তুঙ্গে জল্পনা। একটা সময় ইরান সরকারের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলে ছিলেন রাইসি। তাঁকে ইরানের সেনাবাহিনী, বিচার বিভাগ এবং আইআরজিসির খুবই ঘনিষ্ঠ বলে মনে করা হতো।

আরও পড়ুন: ‘কেউ বেঁচে নেই’! হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় প্রয়াত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও বিদেশমন্ত্রী

রাইসির মৃত্যুর পর ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে ইরানের নতুন রাষ্ট্রপতি নিয়োগের প্রক্রিয়া। একটা সময় এই রাইসিকেই ‘তেহরানের কসাই’ বলতেন সেখানকার মানুষ।  ১৯৮৮ সালে তিনি এমন একটি কমিটিতে যুক্ত ছিলেন যে কমিটি ওই বছর ৫০০ জন রাজনৈতিক বন্দিদের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছিল। তাই রাইসিকে বরাবরই একজন উগ্রপন্থী হিসেবে বিবেচনা করা হত।

এখন প্রশ্ন হল রাইসির মৃত্যুর পর এখন ইরানের প্রেসিডেন্ট কে হবেন? ১৯ মে দুর্ঘটনায় রাইসির  মৃত্যুর পর ইরানের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মোখবার (Mohammad Mokhber) দেজফুলিকে তার স্থলাভিষিক্ত করা হয়েছে। জানা যাচ্ছে ইরানের সংবিধান অনুসারে দায়িত্বরত রাষ্ট্রপতির মৃত্যুর ৫০ দিনের মধ্যে নতুন রাষ্ট্রপ্রধানকে নির্বাচিত করতে হবে।

Mokhbaer

প্রসঙ্গত এদিন রাইসির মৃত্যুর খবর আসা মাত্রই জরুরি ভিত্তিতে বৈঠকে বসেছিল ইরানের মন্ত্রিসভা। সেই  বৈঠকে ফার্স্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মোখবার সভাপতিত্ব করেছিলেন। আর এদিনের এই  বৈঠকেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ইব্রাহিম রাইসির পর ইরানের নতুন প্রেসিডেন্ট হতে চলেছেন মহম্মদ মোখবার। বর্তমানে তিনি দেশের অন্তর্বতী প্রেসিডেন্ট হিসেবে কাজকর্ম চালিয়ে যাবেন। পরবর্তীতে ইরানের সুপ্রিম নেতা খোমেইনি সম্মতি দিলে  তবেই মোখবার দেশের রাষ্ট্রপতি হতে পারবেন।

Anita Dutta
Anita Dutta

অনিতা দত্ত, বাংলা হান্টের কনটেন্ট রাইটার। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৪ বছরের বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত।

সম্পর্কিত খবর