১ বছরেই ৬০ হাজার কোটির ভর্তুকি, এই টিকিটে বড় ছাড় রেলের! জানালেন স্বয়ং রেলমন্ত্রী

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক: আমাদের দেশে (India) যাতায়াতের ক্ষেত্রে গণপরিবহণের অন্যতম মাধ্যম হল রেলপথ (Indian Railways)। ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে রেলের যাত্রীসংখ্যা। এমতাবস্থায়, ক্রমবর্ধমান যাত্রীদের কথা মাথায় রেখে একের পর এক গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করে রেল। তবে, এবার একটি বড় তথ্য সামনে এসেছে। এই প্রসঙ্গে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ভারতীয় রেল যাত্রী টিকিটে ৫৯,৮৩৭ কোটি টাকার ভর্তুকি দিয়েছে।

শুধু তাই নয়, ভর্তুকির পরিমাণের মধ্যে চারটি বিভাগের প্রতিবন্ধী, রোগীদের ১১ টি শ্রেণি, এবং ৮ টি বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ছাড় অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি, ২০২২-২৩ অর্থবর্ষে প্রায় ১৮ লক্ষ রোগী এবং তাঁদের আত্মীয়রা এই বিশেষ ছাড়ের সুবিধা পেয়েছেন।

তথ্য দিলেন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব: এই প্রসঙ্গে রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব গত বুধবার লোকসভায় রেল যাত্রীদের বিভিন্ন শ্রেণির জন্য প্রাক-কোভিড ছাড় বহাল করার বিষয়ে কেরালার কংগ্রেস সাংসদ আন্তো অ্যান্টনির প্রশ্নের লিখিত উত্তরে এই তথ্য দিয়েছেন।

আরও পড়ুন: অবাক কাণ্ড! ৩৩৩ টাকার চেক নিলাম হল ৯০ লক্ষ টাকায়, কারণ জানলে উড়বে হুঁশ

ছাড় দেওয়ার অনুরোধের প্রশ্নে মন্ত্রী কি জানিয়েছেন: রেল যাত্রীদের ছাড় বহাল করার প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানান যে, বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে মন্ত্রক স্তর, বিভাগীয় স্তর, জোনাল স্তর এবং এমনকি স্টেশন স্তরে একাধিক চ্যানেলের মাধ্যমে অনুরোধ এবং পরামর্শ পাওয়া গিয়েছে।

আরও পড়ুন: অমান্য করলেই ২০০০ টাকার চালান! কমানো হল স্পিড, এই এক্সপ্রেসওয়ে নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত

উল্লেখ্য যে, দক্ষিণ-মধ্য জোনের তিনটি বিভাগে ইতিমধ্যেই “কবচ” ইনস্টল করা হয়েছে। সম্পূর্ণ দেশীয়ভাবে তৈরি এই স্বয়ংক্রিয় ট্রেন সুরক্ষা ব্যবস্থা কবচ ১৩৯ টি লোকোমোটিভ সহ দক্ষিণ মধ্য অঞ্চলের তিনটি বিভাগে ইনস্টল করা হয়েছে।

Big discount on this ticket for passengers of railways

এমতাবস্থায়, কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব লোকসভায় প্রশ্নের লিখিত উত্তরে জানান, সিস্টেমটি তিনটি বিভাগে ইনস্টল করা হয়েছে। সেগুলি হল, লিঙ্গামপল্লি-ভিকারাবাদ-ওয়াড়ি এবং ভিকারাবাদ-বিদার সেকশন (২৬৫ কিমি), মনমাদ-মুদখেদ-ধোনে-গুন্টকাল সেকশন ( ৯৫৯ কিমি) এবং বিদর-পারভানি সেকশন (২৪১ কিমি)। অর্থাৎ, মোট ১,৪৬৫ কিলোমিটার রুটে এটি স্থাপন করা হয়েছে।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর