অচল হয়ে যাচ্ছে Aadhaar Card! চিন্তায় বহু মানুষ, এবার কেন্দ্রের কাছে হলফনামা তলব করল হাই কোর্ট

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বর্তমানে এদেশের মানুষদের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি নথি হল আধার কার্ড (Aadhaar Card)। সিম কার্ড তোলা থেকে শুরু করে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলা, কমবেশি প্রায় প্রত্যেকটি কাজেই দরকার হয় এই নথির। আধার কার্ড না থাকলে মেলে না বহু সরকারি সুযোগ সুবিধা। এমতাবস্থায় যদি এই নথি নিষ্ক্রিয় হয়ে যায় তাহলে চিন্তার শেষ থাকে না!

   

বিগত কয়েকমাস ধরেই যেমন বহু মানুষের আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার খবর সামনে আসছে। অভিযোগ, অনেকের আধার কার্ড ‘ডিঅ্যাক্টিভেট’ হয়ে যাচ্ছে। তবে মিলছে না কোনও সদুত্তর। এই বিষয়ে কলকাতা হাই কোর্টে (Calcutta High Court) একটি জনস্বার্থ মামলা করা হয়। বৃহস্পতিবার হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি টি এস শিবজ্ঞানম এবং বিচারপতি হিরণ্ময় ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চে সেই মামলার শুনানি ছিল।

ইতিমধ্যেই প্রায় হাজারেরও বেশি মানুষের আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় (Aadhaar Card Deactivate) হয়ে গিয়েছে বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। পাশাপাশি আধার কার্ড সংক্রান্ত এই বিষয়ে কেন্দ্রের তরফ থেকেও বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয়। বলা হচ্ছে, এটা আদতে ‘এরর’। কেন এমন বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে? এই প্রশ্ন তুলে কলকাতা হাই কোর্টে আধার সংক্রান্ত এই জনস্বার্থ মামলা দায়ের করে জয়েন্ট ফোরাম অ্যাগেইনস্ট এনআরসি অ্যান্ড এএনআর।

আরও পড়ুনঃ বিরাট চমক! শুভেন্দুর হাত ধরে BJP-তে কৃষ্ণনগরের রানিমা অমৃতা, চাপ বাড়ছে মহুয়ার?

মামলাকারীর তরফ থেকে আবেদন করা হয়েছে, যে সকল ব্যক্তির আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে তাঁদের অবিলম্বে জানানো হোক। এদিকে আবেদন শোনার পর কেন্দ্রের তরফ থেকে দাবি করা হয়, আধার সংক্রান্ত এই মামলা গুরুত্বহীন। বিদেশি নাগরিকদের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য। তবে হাই কোর্ট এই মামলায় কেন্দ্রের কাছ থেকে হলফনামা তলব করেছে। কেন এমনটা হয়েছে, কেন্দ্রের কাছ থেকে চাওয়া হয়ে তার সদুত্তর। আগামী ২৪ এপ্রিল এই মামলার পরবর্তী শুনানি আছে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে কেন্দ্রকে হলফনামা দিতে হবে।

high court

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি রাজ্যের বহু মানুষের আধার কার্ড নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার খবর সামনে আসে। কেউ কেউ আবার নাগরিকত্ব হারানোর চিন্তায় পড়ে যান। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও বিষয়টি নিয়ে সুর চড়িয়েছিলেন। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর অফিস থেকে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে একটি চিঠিও পাঠানো হয়েছে বলে খবর। তবে বিজেপির দাবি, টেকনিক্যাল কোনও সমস্যা হতে পারে, দুশ্চিন্তার কোনও কারণ নেই।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর