ডার্বি জয়ের পরেই ঝটকা! সেমিফাইনালের আগেই দুশ্চিন্তার মেঘ লাল-হলুদ শিবিরে

বাংলা হান্ট ডেস্ক: কলিঙ্গ সুপার কাপে (Kalinga Super Cup) গত ১৯ তারিখ অর্থাৎ শুক্রবার দুর্দান্ত চমক দেখিয়েছে ইস্টবেঙ্গল (East Bengal FC)। ওই ম্যাচে লাল-হলুদ শিবির ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকেও মোহনবাগান সুপার জায়ান্টকে শেষ পর্যন্ত ৩-১ গোলে হারিয়েছে। সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল অনেকেই ইস্টবেঙ্গলের এই জয়কে ডুরান্ড কাপের বদলা হিসেবে বিবেচিত করছেন। তবে, এই ম্যাচটি জিতে লাল-হলুদ টিমে আত্মবিশ্বাস বাড়লেও সবুজ-মেরুন শিবিরে রয়েছে বেদনার আবহ।

   

কারণ, ওই ম্যাচটি হেরে গিয়ে কলিঙ্গ সুপার কাপ থেকে ছিটকে গিয়েছে মোহনবাগান। এদিকে, এহেন জয়ের কিছু সময় পরেই ইস্টবেঙ্গলের জন্য সামনে এসেছে খারাপ খবরও। এই প্রসঙ্গে প্রথমেই জানিয়ে রাখি যে, ডার্বিতে হারের পর রীতিমতো কড়া সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে মোহনবাগানকে। যদিও, কোচ ক্লিফোর্ড মিরান্ডা ফুটবলারদের প্রশংসাই করেছেন।

East Bengal is worried before the semi-finals

ম্যাচের পর তিনি জানিয়েছেন, “আমরা ম্যাচ হারলেও কোনো ফুটবলার বা কারও বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। কারণ, দল যেভাবে পারফরম্যান্স করেছে তাতে আমি খুশি। আমাদের দলে একাধিক ফুটবলার তরুণ রয়েছে। ওদের পক্ষে ডার্বির চাপ নেওয়াটা সম্ভব নাও হতে পারে। এমনিতেই বড় ম্যাচের চাপ সামলানো মুখের কথা নয়। তারপরেও ওরা যেভাবে খেলেছে, সেই লড়াইতে আমি খুশি।”

আরও পড়ুন: এবার চিনকে ভাতে মারতে মাঠে নামলেন আম্বানি! ভারতের এই প্রতিবেশী দেশে মেগা এন্ট্রি নিতে চলেছে Jio

এদিকে, মোহনবাগানকে হারানোর পর এবার সেমিফাইনালের মঞ্চে ইস্টবেঙ্গলের প্রতিপক্ষ থাকবে জামশেদপুর এফসি। কিন্তু সেমিফাইনালের লড়াইতে নামার মহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের মুখোমুখি হয়েছিল ইস্টবেঙ্গলের রিজার্ভ দল। আর ওই ম্যাচেই ঘটে বিপত্তি। কারণ, সেই ম্যাচে নির্ধারিত সময়ে সাদা কালো শিবির ইস্টবেঙ্গলের জালে ৫ টি গোল ঢুকিয়ে ম্যাচ জিতে যায়। এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি যে, এই ম্যাচটি পূর্বনির্ধারিত ছিল এবং পূর্বের সময়সূচী হিসেবেই খেলাটি সম্পন্ন হয়।

আরও পড়ুন: কাকতালীয় ঘটনা! ১৫০ বছর ধরে এই সম্প্রদায় জানে রামলালার প্রাণপ্রতিষ্ঠার দিন! হয় বিশেষ উৎসবও

তবে, ম্যাচটিতে ইস্টবেঙ্গল আদৌ প্রভাব দেখাতে পারেনি। যার ফলে কলিঙ্গ সুপার কাপের সেমিফাইনালের আগে লাল-হলুদ শিবিরে চিন্তা রয়েছে। পাশাপাশি, ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়ে আই লিগের দ্বিতীয় লিগ শুরু হওয়ার আগে মহামেডান স্পোর্টিং বাড়তি অক্সিজেন পেয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানে রয়েছে। পাশাপাশি, এবার ধারাবাহিকভাবে ভালো পারফরম্যান্স বজায় রেখে ট্রফি হাসিল করতে চাইছে তারা।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর