কোন কোন পরিস্থিতিতে গুলি চালাতে পারবে কেন্দ্রীয় বাহিনী? ভোটের আগে স্পষ্ট করে দিল কমিশন

   

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ একুশের বিধানসভা নির্বাচনে শীতলকুচিতে যে ঘটনা ঘটেছিল তার ক্ষত এখনও টাটকা! একটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিচালনা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল গোটা রাজ্য। মাঝখানে প্রায় তিন বছর কেটে গেলেও সেই ঘটনার রেশ পুরোপুরি কাটেনি। তাই চব্বিশের লোকসভা নির্বাচনের শুরু থেকেই সতর্ক নির্বাচন কমিশন (Election Commission)।

আগামী ১৯ এপ্রিল রাজ্যে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ (Lok Sabha Election 2024)। উত্তরবঙ্গের তিন আসন, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার এবং জলপাইগুড়িতে সেদিন নির্বাচন। তার আগে কেন্দ্রীয় বাহিনী কী কী করতে পারবে এবং কী কী পারবে না তা জানিয়ে দিল মুখ্য নির্বাচন আধিকারিক। সিইও-র অফিসের তরফ থেকে সকল জেলা নির্বাচন অফিসার এবং জেলা শাসককেও এই বিষয়ে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

কমিশন (EC) জানিয়েছে, ভোটার, ভোট কর্মী এবং পোলিং এজেন্টরা যাতে সকল নিয়ম মেনে চলেন সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। তাঁদের সঙ্গে নম্রভাবে কথা বলতে হবে। সৌজন্য বজায় রাখতে হবে। সেই সঙ্গেই বলা হয়েছে, বুথে যদি কোনও অনভিপ্রেত ঘটনা কিংবা দুর্ঘটনা ঘটে তাহলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব নিরপেক্ষ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ হাই কোর্টের নির্দেশ অমান্য! এবার প্রোমোটারের বিরুদ্ধে বিরাট পদক্ষেপ নিলেন জাস্টিস সিনহা

সকল ভোটার যাতে নির্ভয়ে অবাধ ভোট দিতে পারে সেটা সুনিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি বলা হয়েছে, কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা বুথের গেটে থাকবেন। যদি প্রিসাইডিং অফিসার ডাকেন, তাহলেই বুথের ভেতর প্রবেশ করতে পারবেন তাঁরা। কমিশনের তরফ থেকে এলোপাথাড়ি গুলি চালানোয় স্পষ্ট নিষেধাজ্ঞার কথা বলা হয়েছে। ইভিএম, ভোট কর্মীদের সুরক্ষা এবং নিজেকে বাঁচানোর আর কোনও উপায় না থাকলেই শুধুমাত্র গুলি চালাতে পারবে কেন্দ্রীয় বাহিনী।

সৌজন্য বজায় রাখার কথা বলা হলেও কারোর সঙ্গে অতিরিক্ত বন্ধুত্ব করতে পারবেন না জওয়ানরা। বুথের মধ্যে ধূমপান নিষিদ্ধ। কারোর থেকে চা কিংবা সিগারেট খাওয়া যাবে না বলে জানিয়েছে কমিশন। সেই সঙ্গেই বলা হয়েছে, অযথা বল প্রদর্শনের দরকার নেই। অপভাষার ব্যবহার কিংবা কুকথা বলা যাবে না।

election commission ec

ডিউটি পয়েন্ট ছেড়ে যেতে পারবেন না কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা। পোলিং স্টাফ, পেপার এবং ইভিএম রক্ষা করতে সর্বদা সচেষ্ট থাকতে হবে তাঁদের। এগুলির পাশাপাশি কমিশনের তরফ থেকে আরও বেশ কিছু ‘ডুজ অ্যান্ড ডোন্টসে’র উল্লেখ করা হয়েছে। চব্বিশের লোকসভা নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন যে কোনও প্রকার ত্রুটি রাখতে চায় না, তা এখান থেকেই বেশ পরিষ্কার।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর