টয়লেটের দুর্গন্ধ দূর করতে পূর্ব রেলের দারুন উপহার, শিয়ালদা-হাওড়া ডিভিশনে বসছে বিশেষ ডিভাইস

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক: কাছে দূরে যে কোনো গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর জন্য বছরের পর বছর ধরে ভারতীয়দের অত্যন্ত ভরসার একটি গণপরিবহন মাধ্যম হলো ভারতীয় রেল (Indian Railways)। তাই প্রতিনিয়ত যাত্রীদের আরও উন্নত এবং আরামদায়ক পরিষেবা দেওয়ার জন্য প্রতিনিয়ত নিত্যনতুন পরিষেবা আনছে ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষ।

সেই সাথে রেল পরিবহন ব্যবস্থায় একের পর এক যোগ হচ্ছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার। কিন্তু তারপরেও ভারতীয় রেলের বিরুদ্ধে নানা ধরনের অভিযোগ করে থাকেন রেল যাত্রীরা। বিশেষ করে ট্রেনের দূরপাল্লার ট্রেনের শৌচালয়ের (Toilet) দুর্গন্ধ কিংবা  অপরিচ্ছন্নতা নিয়ে যাত্রীদের অভিযোগ আজকের নয়।

তবে এবার যাত্রীদের এই সমস্যা দূর করতেই কার্যত নড়েচড়ে বসেছে ভারতীয় রেল মন্ত্রক। যার ফলে আগামী দিনে ট্রেনের শৌচাগারের দুর্গন্ধ দূর করতে আইওটি ভিত্তিক ব্যবস্থাআনতে চলেছে পূর্ব রেল।যার নাম দেওয়া হয়েছে ‘গন্ধভেদ’ (Gandhaved)। ট্রেনের শৌচাগার গুলিতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং স্বাস্থ্যবিধি পর্যবেক্ষণের জন্যই এমনই একটি আইওটিভিত্তিক ব্যবস্থা নিয়ে আসছে পূর্ব রেল।

জানা যাচ্ছে প্রথমে এই ব্যবস্থা মধ্য রেলওয়ে অর্থাৎ মুম্বাই জোনের কয়েকটি স্টেশনের টয়লেটে পরীক্ষা করা হয়। সেখানে এই পরীক্ষা সফল হওয়ার পরেই পূর্ব রেল-ও  রেলওয়ে বোর্ডের নির্দেশে পরীক্ষামূলকভাবে গন্ধভেদ সিস্টেম চালু করতে চলেছে।  জানা আছে আগামী দিনের হাওড়া ডিভিশনের তিনটি ট্রেন, শিয়ালদা ডিভিশনের তিনটি ট্রেন,আসানসোল ডিভিশনের দুটি ট্রেন, এবং মালদা ডিভিশনের দুটি ট্রেনে এই গন্ধভেদ ডিভাইস ট্রায়াল চালানো হবে।

আরও পড়ুন: ‘নিজেকে সর্বেসর্বা মনে করে…’, পুলিশের ভূমিকায় ক্ষুব্ধ! বিরাট নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট

এই অত্যাধুনিক ডিভাইসটি ট্রেনের টয়লেটের অবস্থা নিয়ে একটি সংকেত তৈরি করে তা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির কাছে এসএমএস কিংবা ওয়েবের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেবে। তখনই টয়লেট পরিষ্কার করার জন্য টয়লেটে পাঠানো হবে কর্মীকে।

জানা গিয়েছে, এই অভিনব গন্ধভেদ ডিভাইসে গন্ধ বোঝার জন্য বিশেষ সেন্সর রয়েছে – যা নিমেষের মধ্যেই অ্যামোনিয়া, হাইড্রোজেন সালফাইড, মিথেন, ট্রাইমিথাইল অ্যামাইন, মিথাইল মারক্যাপ্টান, ইথানল ইত্যাদি শনাক্ত করতে পারে। এছাড়া, মাত্রাতিরিক্ত রাসায়নিক পদার্থ, যা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর, সেটাও খুবই দ্রুত চিহ্নিত করা সম্ভব হয়।

Toilet

এপ্রসঙ্গে পূর্ব রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক কৌশিক মিত্র জানিয়েছেন, ‘এটি একটি আইওটি ভিত্তিক বৈদ্যুতিন ডিভাইস। যা দুর্গন্ধ, উদ্বায়ী জৈব যৌগ (টিভিওসি), তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা পর্যবেক্ষণ করে পরিস্থিতি বিচার করে’। জানা যাচ্ছে এই ট্রায়াল সফল হলে ট্রেনেও স্থায়ীভাবে এই ডিভাইস ব্যবহার করা হবে।

Anita Dutta
Anita Dutta

অনিতা দত্ত, বাংলা হান্টের কনটেন্ট রাইটার। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় স্নাতকোত্তর। বিগত ৪ বছরের বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত।

সম্পর্কিত খবর