‘পদক্ষেপ না নিলে ভূগতে হবে’, মুখ্যসচিব-স্বরাষ্ট্রসচিবকে তলব রাজ্যপালের, দিলেন কড়া বার্তা

বাংলা হান্ট ডেস্ক : রেশন দুর্নীতি মামলায় (Ration Scam) ইডির (Enforcement Directorates) অভিযান ঘিরে তোলপাড় উত্তর ২৪ পরগনার (North 24 parganas) সন্দেশখালি এলাকা। তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখের বাড়িতে হানা দিতে গিয়ে বিপদগ্রস্ত ইডি আধিকারিকরাই। আর এবার সেই প্রসঙ্গেই মুখ খুললেন রাজ্যপাল (Governor) সিভি আনন্দ বোস (CV Anand Bose)। সেই সাথে শুক্রবার সাত তাড়াতাড়ি রাজ্যের মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব ও রাজ্য পুলিশের ডিজিকে রাজভবনে তলব করেছেন তিনি।

   

শুক্রবার সকাল থেকেই গরম হয়ে রয়েছে রাজ্যের হাওয়া। সন্দেশখালিতে ইডি আধিকারিকদের এই হেনস্থা দেখার পর ঠিক থাকতে পারছেনা কেউই। ইতিমধ্যেই বড় মন্তব্য করেছেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। আর এবার আসরে নামলেন খোদ রাজ্যপাল। বেশ স্পষ্ট ভাষাতেই জানিয়ে দিলেন যে, ‘উপযুক্ত পদক্ষেপ না করলে ফল ভোগার জন্য যেন প্রস্তুত থাকে রাজ্য সরকার।’

সূত্রের খবর, শুক্রবার জরুরি তলব গেছে রাজ্যের মুখ্যসচিব বিপি গোপালিকা, স্বরাষ্ট্রসচিব নন্দিনী চট্টোপাধ্যায় ও রাজ্য পুলিশের ডিজি রাজীব কুমারের কাছে। সেই সাথে এক অডিও বার্তা জারি করে সিভি আনন্দ বোস জানিয়েছেন, ‘যে ভয়াবহ ঘটনার খবর সন্দেশখালি থেকে পেয়েছি তা উদ্বেগজনক ও অগ্রহণযোগ্য। বর্বরতা ও তাণ্ডব বন্ধ করা গণতন্ত্রে যে কোনও সভ্য সরকারের দায়িত্ব।’

আরও পড়ুন : মহা বিপদে ক্যাপ্টেন কুল, খোয়ালেন ১৫ কোটি টাকা! IPL-র আগেই আদালত ছুটলেন ধোনি

hs82z275ndhmj8gozb8x

অডিও বার্তায় তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘সরকার তার প্রাথমিক দায়িত্ব পালনে অক্ষম হলে সংবিধান তার পথে চলবে। রাজ্যপাল হিসাবে এই ঘটনায় উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে আমি আমার সমস্ত সাংবিধানিক অধিকার সংরক্ষিত রাখছি।’ সেই সাথে তিনি আরও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, ‘পেশিশক্তির প্রদর্শন ও কাগুজে বাঘদের দিয়ে কদমতাল করিয়ে বাংলার মানুষের কোনও উপকার হবে না। জঙ্গলরাজ ও গুন্ডারাজ শুধু মুর্খের স্বর্গে কাজ করে।’

আরও পড়ুন : ‘কাকু বাঁচাও আন্দোলন’, নিশানায় মমতা-অভিষেক! রুদ্রনীলের নয়া কবিতা ঘিরে তোলপাড়

screenshot 2024 01 05 130204

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শুক্রবার সাতসকালে উত্তর ২৪ পরগনায় দুই তৃণমূল নেতার (TMC Leaders) বাড়িতে হানা দেয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। খবর ছড়াতেই শুরু হয় হাঙ্গামা। তারপরেই ইডি আধিকারিকদের উপর চড়াও হয় তৃণমূল নেতার অনুগামীরা। কোনও কারণ ছাড়াই ইডির উপর চড়াও হয় বিক্ষোভকারীরা। পরিস্থিতি উত্তপ্ত হতে হতে সবকিছু হাতের বাইরে চলে যায়। একটা সময় ইডি অফিসাররা এলাকা ছাড়তে বাধ্য হন এবং বেশ গুরুতরভাবে জখমও হয়েছেন কিছুজন।