কলকাতায় গ্রেফতার পাক চর! হানিট্র্যাপের মাধ্যমে তথ্য পাচার পাকিস্তানে, সাফল্য STF-র

বাংলা হান্ট ডেস্ক : পাকিস্তানের (Pakistan) হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করার অভিযোগে এক যুবককে গ্রেফতার করল কলকাতা পুলিসের এসটিএফ (Special Task Force)৷ ভকত বংশি ঝা নামে ওই যুবককে শুক্রবার রাতে কলকাতার রিপন স্ট্রিট এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়৷ আদতে বিহারের (Bihar) দারভাঙার বাসিন্দা ওই যুবকের মোবাইল থেকে এমন কিছু ছবি, তথ্য উদ্ধার করা হয়েছে, যা পাকিস্তানে পাঠানো হয়েছিল৷

   

কী বলছে পুলিস? কলকাতা পুলিস সূত্রে খবর, ধৃত ওই যুবক এর আগে দিল্লিতে থাকত৷ গত তিন মাস ধরে কলকাতায় থাকছিল সে৷ ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিভিন্ন দফতর, সেনা ছাউনির ছবি সহ তথ্য সে পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থার কাছে পাঠাত বলে অভিযোগ৷ গোপন সূত্রে খবর পেয়েই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়৷

stf 3

যোগাযোগ ছিল পাকিস্তানের সঙ্গে : পুলিস জানিয়েছে, ৩৬ বছর বয়সি ওই যুবকের মোবাইল ফোন থেকে বেশ কিছু ছবি, ভিডিও, তথ্য, অনলাইন চ্যাট উদ্ধার করা হয়েছে৷ এ সবকিছুই পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থাকে পাঠানো হয়েছিল বলে সন্দেহ পুলিসের৷ ধৃতের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০ (বি) সহ একাধিক ধারায় মামলা করা হয়েছে৷

হানি ট্র্যাপের ফাঁদ : তদন্তকারীদের অনুমান, সম্ভবত হানি ট্র্যাপের মাধ্যমেই ওই যুবককে ফাঁদে ফেলেছিল পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থা৷ কীভাবে পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থার যোগাযোগ হল, কার কথায় সে এই গুপ্তচরবৃত্তি শুরু করেছিল, ধৃতকে জেরা করে তা জানার চেষ্টা করছে পুলিস৷ কলকাতা বা ভারতে তার আর কোনও সহযোগী আছে কি না, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

আরও পড়ুন : ‘অসাধারণ সাফল্য!’, ভারতের চন্দ্র বিজয়ের প্রশংসা করল পাকিস্তান, পড়শি দেশের মন্তব্য শুনলে গর্বিত হবেন

পরিচয় গুপ্তচর সংস্থার সদস্যের সঙ্গে : তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, বিহারের বাসিন্দা ৩৬ বছরের ভকত বংশিো ঝাঁ দিল্লির একটি নামি ক্যুরিয়ার সংস্থায় কর্মরত ছিলেন। বদলি হওয়ায় কর্মসূত্রে কলকতায় এসছলেন তিন মাস আগে। গত অক্টোবর মাসে সোশ্যাল মিডিয়ায় (ফেসবুকে) এক মহিলার সঙ্গে পরিচয় হয় তার। ফেসবুক প্রোফাইল অনুযায়ী মহিলার নাম আরুশি সিং বলেই জানিয়েছেন অভিযুক্ত। ওই মহিলা নিজেকে পঞ্জাবের অমৃতস্বরের বাসিন্দা বলে দাবি করেছিল। তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন, আদতে ওই মহিলা পাকিস্তানি গুপ্তচর সংস্থার একজন অফিসার।

সম্পর্কিত খবর