”স্বপ্ন নয় বাস্তব!” বুলেট ট্রেন প্রকল্পের ভিডিও শেয়ার করে জানালেন রেলমন্ত্রী, প্রশংসায় পঞ্চমুখ নেটিজেনরা

বাংলা হান্ট ডেস্ক: একদিকে যেমন বন্দে ভারতের (Vande Bharat Express) মতো অত্যাধুনিক সেমি হাই-স্পিড ট্রেন সফর করছে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে, অপরদিকে দেশের পরিবহণ ব্যবস্থাকে নতুন উচ্চতায় পৌঁছে দিতে জোরকদমে চলছে বুলেট ট্রেন (Bullet Train) প্রকল্পের কাজ। এদিকে, রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব (Ashwini Vaishnaw) প্রায়শই দেশের বিভিন্ন রেল স্টেশনের পাশাপাশি রেলপথ (Indian Railways) এবং রেল সংক্রান্ত উন্নয়নমূলক কাজের পরিসংখ্যান ও ছবি-ভিডিও নেটমাধ্যমে উপস্থাপিত করেন। সেই রেশ বজায় রেখেই তিনি এবার শেয়ার করেছেন বুলেট ট্রেন প্রকল্পের একটি ভিডিও। যেখানে তিনি বহুকাঙ্ক্ষিত মুম্বাই-আহমেদাবাদ ট্রেন করিডোরের কাজ এবং সেই সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য ভিডিওর মাধ্যমে উপস্থাপিত করেছেন।

   

এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখি যে, মুম্বাই এবং আহমেদাবাদের মধ্যে ৫০৮ কিলোমিটার দূরত্ব কভার করা বুলেট ট্রেন প্রতি ঘন্টায় ৩২০ কিমির সর্বোচ্চ গতি অর্জন করতে পারবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। যা এই সফরের সময় মাত্র ২ ঘন্টায় নামিয়ে আনবে। ইতিমধ্যেই বুলেট ট্রেনের রুটের জন্য ২৪ টি রিভার ব্রিজ এবং ২৮ টি স্টিল ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে।

এদিকে, রেলমন্ত্রীর শেয়ার করা ওই ভিডিওটিতে প্রকল্পটিকে, ”বিশ্ব-মানের এক বিস্ময় ইঞ্জিনিয়ারিং” এবং “‘ভারতের ভবিষ্যৎ” হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। ভিডিওটি শেয়ার করে রেলমন্ত্রী লিখেছেন, ”আমরা স্বপ্ন নয় বাস্তবতা বুনেছি। মোদী 3.0-তে বুলেট ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করুন!”

আরও পড়ুন: অসম্ভব হলেও সত্যি! মানবশরীরের তাপ দিয়েই চার্জ করা যাবে মোবাইল, অনন্য উদ্ভাবন IIT-র গবেষকদের

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, ২০২১ সালের নভেম্বরে কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে মুম্বাই-আহমেদাবাদ করিডোরের কাজ অনেকটাই এগিয়েছে। গত বছর, রেলমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন যে, ভারতের প্রথম বুলেট ট্রেন সেকশন গুজরাটের বিলিমোরা এবং সুরাটের মধ্যে ৫০ কিলোমিটার জুড়ে প্রসারিত হবে এবং এটির কাজ ২০২৬ সালের অগাস্ট মাসের মধ্যে শেষ হবে। এদিকে, ইতিমধ্যেই এই ভিডিওটি পরিলক্ষিত করে প্রকল্পটির প্রশংসা করে নিজেদের প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন নেটিজেনরা।

আরও পড়ুন: Paytm পেল বিরাট ধাক্কা! ইস্তফা দিলেন পেমেন্ট ব্যাঙ্কের ডিরেক্টর, সংস্থা থেকে ভরসা উঠছে গ্রাহকদের

জানা গিয়েছে যে, পরিষেবা শুরুর সময়ে ৩৫ টি বুলেট ট্রেন চালানো হবে। যেটি ২০৫০ সালের মধ্যে ১০৫ টি ট্রেনে উন্নীত করার পরিকল্পনা রয়েছে। এই সফর শুরু হলে প্রতি বছর প্রায় ১.৬ কোটি যাত্রী বুলেট ট্রেনে ভ্রমণ করবেন বলে অনুমান করা হচ্ছে। এই প্রকল্পটির মোট খরচ ধরা হয়েছে ১.০৮ লক্ষ কোটি টাকা। যেখানে কেন্দ্র সরকার দেবে ১০,০০০ কোটি টাকা। পাশাপাশি, গুজরাট এবং মহারাষ্ট্র দেবে ৫,০০০ কোটি টাকা করে। অবশিষ্ট অর্থ জাপান থেকে একটি ঋণের মাধ্যমে ন্যূনতম ০.১ শতাংশ সুদের হারে পাওয়া যাবে।