নজরে মালদ্বীপ, এ বার লক্ষদ্বীপে যাচ্ছে ‘জটায়ু’, তৈরি হবে নয়া নৌ ঘাঁটি

বাংলা হান্ট ডেস্ক : চিনা (China) আগ্রাসন বৃদ্ধি পেতেই ভারত মহাসাগরের উপর নজরদারি আরও বাড়াতে চাইছে মোদী সরকার। যে কারণে লাক্ষাদ্বীপে (Lakshadweep) নয়া নৌঘাঁটির তোড়জোড়ও শুরু করে দিয়েছে নয়া দিল্লি (New Delhi)। সূত্রের খবর, এবার থেকে দ্বীপ সংলগ্ন সাগরের উপর নজরদারি চালাবে ভারতের ‘জটায়ু’। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই রণতরী ‘জটায়ু’ পৌঁছে যাবে লাক্ষাদ্বীপে‌।

   

ইন্ডিয়া টুডের দাবি অনুযায়ী, প্রাথমিকভাবে রণতরীটিকে রাখা হবে লাক্ষাদ্বীপের মিনিকয় দ্বীপে। গুটিকয়েক নৌ আধিকারিক এবং কর্মী নিয়ে ‘জটায়ু’ পৌঁছে যাবে লাক্ষাদ্বীপে‌র মিনিকয় দ্বীপে। আগামী দিনে আরও বাড়ানো হবে নৌসেনার পরিমাণ। একপ্রকার পুরো একটি ঘাঁটি তৈরি করা হবে সেখানে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মালদ্বীপে ক্ষমতা বদল হতেই ভারতকে পাকে ফেলার চেষ্টা করছে দ্বীপরাষ্ট্রটি। এবং এই গোটা বিষয়টা যে চিনের মদতেই ঘটছে সেকথা বলাই বাহুল্য। মূলত ভারতকে মাত দেওয়ার জন্যই মালদ্বীপকে হাতের অস্ত্র করতে চাইছে ড্রাগন সেনা। ভারত মহাসাগরে চিনের আনাগোনাও আগের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে।

আরও পড়ুন: ঢাকায় বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড, ঝলসে মৃত কমপক্ষে ৪৩, আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি একাধিক

navy2 ins

আর সেই কারণেই মালদ্বীপ এবং চিনের যৌথ কার্যকলাপের উপর নজর রাখার জন্য নয়াদিল্লি পাঠাচ্ছে ‘জটায়ু’। সূত্রের খবর, আগামী সপ্তাহের মধ্যেই ‘জটায়ু’ পৌঁছে যাবে মিনিকয় দ্বীপে। একই সাথে নৌবাহিনীর কমান্ডারদের কনফারেন্স প্ল্যান অনুষ্ঠিত হবে আইএনএস বিক্রান্ত এবং আইএনএস বিক্রমাদিত্যের উপরে। আর সেখানেই নতুন ঘাঁটি তৈরি হবে ‘জটায়ু’কে ঘিরে।

আরও পড়ুন : ট্রায়াল রানে সেঞ্চুরি, কমবে কলকাতা-উত্তরবঙ্গের দূরত্ব, নশিপুর সেতু উদ্বোধনের পথে প্রধানমন্ত্রী

তবে এখানেই শেষ নয়, রণতরীর পাশাপাশি সেখানে পাঠানো হবে বেশকিছু হেলিকপ্টারও। শোনা যাচ্ছে সেখানে পাঠানো হবে এমএইচ ৬০ কপ্টার। সবে মিলিয়ে আরব সাগরের উপর ভারতের দখল যাতে বজায় থাকে সেই কারণে আঁটঘাট নেমেই সাগরে নামছে নয়া দিল্লি।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর