ফের একবার খারিজ হল বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশ, প্রাথমিক নিয়োগ দুর্নীতির মামলায় বড় খবর

বাংলা হান্ট ডেস্ক : প্রাথমিক নিয়োগ (Primary Recruitment) সংক্রান্ত মামলায় ফের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Abhijit Ganguly) একটি রায় খারিজ করে নয়া রায় দিল কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court) ডিভিশন বেঞ্চ। কিছুদিন আগেই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় বিচারপতি যে প্যানেল প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছিলেন, এইদিন সেটাই খারিজ করে দিয়েছে বিচারপতি সৌমেন সেন এবং বিচারপতি উদয় কুমারের ডিভিশন বেঞ্চ।

   

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এর আগে গত ৩ জানুয়ারি বাংলার শিক্ষক নিয়োগের প্যানেল প্রকাশের জন্য নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দিয়েছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। সময় দিয়েছিলেন ১০ দিন। তারমধ্যেই প্রাথমিকের ৪২ হাজার ৯৪৯ জন প্রার্থীর প্যানেল প্রকাশ করার নির্দেশ দিয়েছিলেন পর্ষদকে। সেই সাথে বিচারপতির নির্দেশ ছিল, এই সময়সীমার মধ্যে প্যানেল প্রকাশ করতে না পারলে হার্ডকপি জমা দিতে হবে।

এরপর বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের এই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ডিভিশন বেঞ্চের দ্বারস্থ হয় পর্ষদ। সেখানেই অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের রায়কে খারিজ করা হয়। আদালত সূত্রে জানা গেছে, এই মামলাটি মূলত ২০১৪ সালের টেট পরীক্ষাকে ঘিরে। সাল ২০১৬ এবং ২০ তে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হলেও তা নিয়ে হয় বিস্তর ঝামেলা। এর আগে এই মামলায় বিচারপতি অমৃতা সিনহার বেঞ্চও প্যানেল প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছিল।

আরও পড়ুন : অভিষেকের কেন্দ্রে বড় বিস্ফোরণ, জখম নাবালককে নিয়ে গোপনীয়তা! বিঁধলেন শুভেন্দু

এরপর গত বছরের ১২ ডিসেম্বর পর্ষদের তরফ থেকে দাবি করা হয়, বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে একটি প্যানেল প্রকাশ করা হলেও ২০১৬ সালের নিয়োগের রীতি মেনে প্যানেল প্রকাশের নিয়ম নেই। যদিও পর্ষদের এই যুক্তি ধোপে টেকেনি। আদালতের তরফে দু’টি নিয়োগের সম্পূর্ণ তালিকা প্রকাশ করার নির্দেশ দেওয়া হয়। সেই সাথে পর্ষদকে তিরস্কারও করে আদালত।

আরও পড়ুন : আগামী ৪৮ ঘন্টায় আবহাওয়ার আমূল ভোলবদল! শুক্রে বৃষ্টির সম্ভাবনা? দেখুন IMD রিপোর্ট

শুনানিতে মোট ৪২ হাজার ৯৪৯ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্যানেল ১০ দিনের মধ্যে প্রকাশ করার নির্দেশ দেন বিচারপতি। সেই হিসেবে সময় ছিল আগামী ১৫ জানুয়ারি অবধি। তবে তার আগেই বদলে গেল নির্দেশ। বুধবার এই মামলায় প্যানেল প্রকাশের নির্দেশ খারিজ করেছে ডিভিশন বেঞ্চ। সেই সাথে জানানো হয়েছে, মামলার বাকি অংশের শুনানি করতে পারবে হাই কোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ।