কেন্দ্রের ‘চক্ষুশূল’ কন্যাশ্রী? এই নিয়ে তৃতীয়বার কুচকাওয়াজে বাংলার ট্যাবলো খারিজ করল দিল্লি

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ এক, দো, তিন! এই নিয়ে তৃতীয়বার রাজধানীতে (Delhi) প্রজাতন্ত্র দিবসের (Republic Day) অনুষ্ঠানে পশ্চিমবঙ্গের ট্যাবলো (Tableau) বাতিল করল কেন্দ্রীয় সরকার (Central Government)। বেশ কিছুদিন যাবৎ এই নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্য টানাপোড়েন চলছিল। ২০২৪ সালের প্রজাতন্ত্র দিবসে নয়াদিল্লির কর্তব্যপথ থাকবে বাংলাহীন।

   

প্রসঙ্গত, প্রথমবার ২০১৫ সালে ‘কন্যাশ্রী’তে সাজিয়ে কেন্দ্রের কাছে ট্যাবলোর প্রস্তাব পাঠিয়েছিল রাজ্য। তবে যথারীতি তা খারিজ করে দেয় কেন্দ্র। আর দীর্ঘ ৯ বছর পর এবছরও তার অন্যথা হল না। ২০২৪ সালের সাধারণতন্ত্র দিবসে কুচকাওয়াজের অনুষ্ঠান থেকেও বাংলার কন্যাশ্রী প্রকল্প (Kanyashree project) খারিজ করল কেন্দ্র সরকার।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই কন্যাশ্রী রাষ্ট্রপুঞ্জে (Commonwealth of Nations) স্বীকৃতি পেয়েছে। যেখানে দেশ পেরিয়ে গোটা বিশ্বের দরবারে সমাদৃত বাংলার মেয়েদের জন্য ইউ সামাজিক প্রকল্প সেখানে কেন্দ্রীয় সরকারের সাধারণতন্ত্র দিবসে কুচকাওয়াজের অনুষ্ঠানে ঠাঁই পেল না ‘কন্যাশ্রী’। কেন ছেঁটে ফেলা হল বাংলার মেয়েদের জন্য গৃহীত অন্যতম সেরা এই প্রকল্প? বিভিন্ন মহলে উঠছে প্রশ্ন।

প্রসঙ্গত, ক্ষমতায় আসার পর থেকেই একাধিক জনকল্যাণমুখী প্রকল্প এনেছে মমতা সরকার। আর তার মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে কন্যাশ্রী। প্রায় ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলছে এই প্রকল্প। ৮১ লক্ষেরও বেশি উপভোক্তা উপকৃত হয়েছেন। তথ্য অনুযায়ী, এই প্রকল্পে এখনও পর্যন্ত মমতা সরকারের খরচ হয়েছে ১৬ হাজার কোটি টাকারও বেশি। তবে তাও কেন কেন্দ্রের ‘চক্ষুশূল’ কন্যাশ্রী?

আরও পড়ুন: DA অতীত! নতুন বছরেই অ্যাকাউন্টে ঢুকবে মোটা টাকা, খুশিতে আত্মহারা সরকারি কর্মীরা

এই প্রসঙ্গে রাজ্যের মন্ত্রী শশী পাঁজা বলেন, ‘‌এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। এই কন্যাশ্রী প্রকল্প রাষ্ট্রপুঞ্জের দ্বারা বিশ্বের দরবারে স্বীকৃতি পেয়েছে। সেটা কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে স্বীকৃতি পাচ্ছে না।’‌ কেন্দ্রের এই আচরণের পেছনে কারণ জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘‌ এই প্রকল্প বিজ্ঞানসম্মতভাবে নারীদের উন্নয়নে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে। আর এই প্রকল্প সামনে আসলে কেন্দ্রীয় সরকারের ব্যর্থতা ফুটে উঠবে। আর এটাই এই ট্যাবলো খারিজের পিছনে কারণ।’‌

kanyashree

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক (Ministry of Defence) সূত্রের খবর, শুক্রবার নবান্নে মেল-মারফত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে রাজ্যের এই ট্যাবলোকে এ বারের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে জায়গা দেওয়া হবে না।