‘পুলিস তো ঘুমাচ্ছে!’, দত্তপুকুরের ঘটনায় প্রশাসনকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে দায় এড়ালেন মমতা

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক : বিগত এক বছর ধরে গোটা রাজ্যের একাধিক জায়গায় বিস্ফোরণের ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে।পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে তার পরিমাণ ও তীব্রতা আরও বেড়েছে। কয়েক মাস আগে পূর্ব মেদিনীপুরের (East Medinipore) এগরায় বাজি বিস্ফোরণের পর রাজ্যে অবৈধ বাজির কারখানার বন্ধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)৷

জেলায় জেলায় তৈরি হবে সবুজ বাজি : এই সময় সবুজ বাজি তৈরির জন্য জেলায় জেলায় ক্লাস্টার তৈরির ঘোষণাও করেন মমতা৷ তার পরেও দত্তপুকুরে বেআইনি বাজি কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটায় পুলিসের একাংশের দু্র্নীতিকেই দায়ী করলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এ দিন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন তিনি৷

mamata 2

পুলিসই দায়ি : গতকাল উত্তর চব্বিশ পরগণার দত্তপুকুরে বেআইনি বাজি কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সেই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ দিন মেয়ো রোডে দলের ছাত্র সংগঠনের সভায় গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘কেউ কেউ বেআইনি কাজ করছে। পুলিস চোখ বন্ধ করে দেখছে৷ লোকাল থানায় যাঁরা দায়িত্বে আছেন তাঁরা কী করছেন আমি বললাম না। আমি অ্যান্টি কোরাপশন সেল চালু করেছি। তারা সব নজর রাখছে। অনেকের একটু লোভ বেশি৷ বাজি কারখানা নিয়ে আমরা দুটো বৈঠক করেছি।’

জড়িয়ে আছে অসংখ্য মানুষের জীবন : দত্তপুকুরের ঘটনার পরেও এ দিন ফের একবার মুখ্যমন্ত্রীর মুখে সবুজ বাজির কথা শোনা গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এগুলো বহু পুরনো সমস্যা। আগে বালি, পাথর নিয়েও কোনও আইন ছিল না। আমরা তৈরি করেছি। আমি চাই সবুজ বাজি তৈরি হোক। কারণ এর সঙ্গে লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবিকা জড়িয়ে আছে, আমি চাই তাঁরাও বাঁচুন৷ সবুজ বাজিতে হয়তো আয় একটু কম হবে, কিন্তু জীবন বাঁচবে।’

আরও পড়ুন : ‘সাহস থাকলে আমাকে গুলি কর!’, একি বললেন মমতা! JU-র ঘটনায় চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন গেরুয়া শিবিরকে

ইতিমধ্যেই দত্তপুকুরের ঘটনায় এনআইএ তদন্তের দাবি করেছেন বিরোধীরা। মুখ্যমন্ত্রী অবশ্য এ দিন সে বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি। তবে শুধু মুখ্যমন্ত্রী নয়, দত্তপুকুরে বিস্ফোরণের পর স্থানীয় বাসিন্দারাও পুলিসের সঙ্গে বাজি কারবারিদের যোগসাজশের অভিযোগ তোলেন৷

Avatar
Sudipto

সম্পর্কিত খবর