বাজার শেষ নন্দিনী দিদির, জলের দরে খাবারের হোটেল খুলল দুই বোন! স্বাদেও দেবে টেক্কা

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক : বছরখানেক আগে থেকেই চর্চায় রয়েছেন ‘স্মার্ট দিদি নন্দিনী’ (Nandini Didi)। ডালহৌসির ফুটপাথ চত্বরে রাস্তার ধারে ভাতের হোটেল চালানো মেয়েটি হয়ে উঠেছে সোশ্যাল মিডিয়া (Social Media) সেনসেশন। ইউটিউবের দৌলতে তার জনপ্রিয়তা এমন জায়গায় পৌঁছেছে যে, সোজা পৌঁছে গেছিলেন ‘দিদি নম্বর ওয়ান’র মঞ্চে। তবে কিছুদিন আগেই শোনা গেছিল অনেকেই নাকি দিদির পেছনে লেগেছেন।

সম্প্রতি এক ইউটিউবারের সাথে সাক্ষাৎকারে নন্দিনী গাঙ্গুলী ওরফে মমতা গাঙ্গুলী জানান, তিনি নাকি হোটেল বন্ধ করছেন। যদিও কী কারণ, কী বৃত্তান্ত কিছুই তিনি জানাননি। তবে তার মধ্যেই প্রকাশ্যে এল স্মার্ট দিদির প্রতিদ্বন্দ্বির নাম। আসলে সম্প্রতি একটি ভিডিও ব্যাপক ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় যাতে বেশ ইন্টারেস্ট পেয়েছে নেটজনতা।

ভাইরাল এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে দুই বোন মিলে ভাতের হোটেল চালাচ্ছেন। যেখানে খাসির মাংস ভাতের থালির দাম মাত্র ৮০ টাকা। যেখানে নন্দিনী দিদির দোকানে এক প্লেট মাংস থালির দাম প্রায় ২২০ টাকা। সম্প্রতি এই বিষয়টা নিয়েই খোঁজ করতে নেমেছিলেন এক ইউটিউবার। নতুন এই হোটেলে গিয়ে তিনি যখন জিজ্ঞেস করেন যে, নন্দিনী দিদির দোকানে এত বেশি দাম কেন নেয় তখন বেশ অবাক করার মত জবাব দিলেন তিনি।

আরও পড়ুন : সোনামণি হোক কী তৃণা, তলানিতে TRP! কমছে হিট নায়িকাদের জনপ্রিয়তা, কারণ কী?

ভদ্রমহিলা যেন নন্দিনী দিদিকে চেনেনই না এমন ভাব নিয়ে বলেন, ‘কে নন্দিনী দিদি? আমরা তো চিনি না তাকে। নন্দিনী দিদি বলে যদি কেউ থেকে থাকে তাহলে সেও এসে দেখুক। আমাদের দোকানে খেয়ে দেখুক খাবারটা ভালো কী মন্দ। সে যদি ফুড ব্লগার হয়ে থাকে সে-ও আমাদের দোকানে আসুক।’ এরপরেই ঐ ইউটিউবার জিজ্ঞেস করেন, তার দোকানে খাবার খেয়ে যদি খারাপ লাগে সেটা মুখের উপর বললে অসুবিধা আছে কি না?

আরও পড়ুন : প্রয়াত ‘থ্রি ইডিয়টস’ খ্যাত অভিনেতা, বহুতল থেকে পড়ে রহস্যমৃত্যু আমির খানের সতীর্থর

জবাবে তিনি বলেন, ‘মোটেও অসুবিধা নেই।’ এরপরেই ইউটিউবার জানান, নন্দিনী দিদির দোকানের খাবারে নুন কম হয়েছে বলায় তাকে নাকি অপমান করা হয়েছিল। এই কথা শুনে এই দিদি বলেন, ‘ভালো মন্দ হতেই পারে। কেউ যদি বলে লবণ কম হয়েছে, সেটা হতেই পারে। হাতের ব্যাপার তো, সবদিন সমান হয়না।’ সম্প্রতি এই ভিডিওটি ভাইরাল হতেই হইচই পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। কমেন্ট বক্সে অনেকেই লিখেছেন, ‘নন্দিনী দিদির পাঠ এবার চুকবে।’

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর