ফের ভারতের বিরুদ্ধে উস্কানি OIC’র! আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারের প্রসঙ্গে কাশ্মীরে গণ নির্বাচনের দাবি

বাংলাহান্ট ডেস্ক: ইসলামিক দেশগুলোর বৃহত্তম সংস্থা অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি) ফের একবার উস্কানিমূলক বক্তব্য দিল ভারতের বিরুদ্ধে। ওআইসি বলেছে জম্মু ও কাশ্মীরে একটি গণভোটের জন্য জাতিসংঘের প্রস্তাবের ৭৫ বছর হয়ে গেছে ২০২৪ সালের ৫ জানুয়ারীতে।

   

এই পরিস্থিতিতে জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারকে সমর্থন করে  প্রস্তাব গ্রহণের আবেদন করেছে ওআইসি। ওআইসির সদস্য দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে পাকিস্তানও। অতীতে ভারতের বিরুদ্ধে উস্কানির জন্য পাকিস্তান বারবার ব্যবহার করেছে ওআইসিকে।

আরোও পড়ুন : কত টাকার মালিক বামেদের নয়নের মণি মীনাক্ষী? পড়াশোনাই বা কতদূর! জানলে আকাশ থেকে পড়বেন

অনেকেই মনে করেন পাকিস্তান ওআইসি বৈঠকে প্রতিটি ভারত বিরোধী প্রস্তাব প্রস্তুত করে এবং জেনারেল সেক্রেটারিয়েট শুধু তা জারি করেন। ওআইসি বলেছে কাশ্মীর একটি অমীমাংসিত ইস্যু এবং “নিজেদের ভাগ্য নির্ধারণে কাশ্মীরিদের অধিকারের বিষয়টি জাতিসংঘের এজেন্ডাতে থাকলেও গত ৭০ বছর ধরে অমীমাংসিত রয়ে গেছে।“

আরোও পড়ুন : হিন্দু-বৌদ্ধ শাসিত লাক্ষাদ্বীপ কীভাবে ইসলাম অধ্যুষিত অঞ্চল হয়ে উঠল? বিতর্কের মাঝেই জানুন সেই ইতিহাস

ওআইসির জেনারেল সেক্রেটারিয়েট একটি বিবৃতি জারি করে বলেছেন, অবাধ ও নিরপেক্ষ গণভোটের মাধ্যমে ভারত ও জাতিসংঘের কমিশনের পৃষ্ঠপোষকতায় কাশ্মীরি জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকারকে সমর্থন করে ওআইসি। জম্মু ও কাশ্মীরে হিংসার ঘটনা এর আগে বহুবার ভারতকে অভিযুক্ত করেছে ওআইসি।

oic islamic summit conference

এই ধরনের মন্তব্যের জন্য অতীতে বহুবার ওআইসির নিন্দা করেছে ভারত। চীনের জিনজিয়াংয়ে মুসলমানরা যখন নির্যাতনের শিকার হন তখন কোনও ধরনের বক্তব্য পেশ করে না ওআইসি। ধর্মের ভিত্তিতে চীনে লাখ লাখ মানুষকে নির্যাতনের শিকার হতে হলেও নীরব থাকে ওআইসি।