‘আপনার জন্যই সন্তানের চিকিৎসা’, ‘কী হবে আমাদের?’, জাস্টিস গাঙ্গুলিকে ঘিরে চোখের জলে ভাসল হাইকোর্ট

   

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ লোকসভা নির্বাচন শিয়রে। তার আগেই বিচারপতি পদ থেকে ইস্তফা দিচ্ছেন জাস্টিস অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় (Justice Abhijit Ganguly)। গত রবিবারই সেকথা ঘোষণা করেছেন তিনি। সেই হিসেবে সোমবার কলকাতা হাইকোর্টে বিচারপতি হিসেবে তাঁর শেষ দিন ছিল। সেই দিনে এজলাসের প্রত্যেকটি কোণায় থাকলো আবেগের ছোঁয়া। আর কখনও বিচারপতির আসনে দেখা যাবে না জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায়কে (Justice Ganguly)! এটা ভেবেই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন বহু মামলাকারী। অনেকের চোখের কোণায় ছিল জল।

আকুতির সুরে একজনের প্রশ্ন, ‘আপনি চলে গেলে আমাদের কী হবে?’ তবে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, তাঁর যাওয়ার সময় চলে এসেছে। এবার অন্য কোনও বিচারপতির হাতে দায়িত্ব তুলে দেওয়া হবে। তিনিও মামলাকারীদের সুরাহা করবেন বলে আশ্বাস দেন জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায়। তাতেও অবশ্য কাটেনি মন খারাপের রেশ।

গত রবিবারই বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়ে দিয়েছিলেন, সোমবার কলকাতা হাইকোর্টে (Kolkata High Court) শেষবারের মতো যাবেন তিনি, মঙ্গলে দেবেন ইস্তফা। বিচারপতির পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ‘বৃহত্তর ক্ষেত্রে’ যাওয়ার কথা বলেন জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায়। আদালতের কক্ষের পর তিনি যে রাজনীতির ময়দানে পা রাখতে চলেছেন সেটাও বুঝিয়ে দেন।

এরপর থেকেই বিচারপতি হিসেবে নিজের কর্মজীবনের শেষ দিনে জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায় কী করেন তা দেখার জন্য মুখিয়ে ছিলেন অনেকে। গতকাল তিনি এজলাসে আসার পর একজন আইনজীবী বলে ওঠেন, ‘আমাদের ছেড়ে যাবেন না। আমাদের কাছে এটা কালো দিন’। তবে জাস্টিস অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, বিচারপতি হিসেবে তাঁর কাজের মেয়াদ ফুরিয়ে গিয়েছে। গতকালই বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসের মামলাগুলি অন্য বেঞ্চে পাঠিয়ে দেয় হাইকোর্ট। সূত্রের খবর, বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এজলাসে সেই মামলাগুলি পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ দলত্যাগের পরেই তাপসকে ফোন ‘মাস্টারমাইন্ড’ পিকের, কী কথা হল দু’জনের? এবার সব ফাঁস

justice abhijit ganguly calcutta high court

গতকাল জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে উপস্থিত ছিলেন একজন মহিলা। তিনি জানান, জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায়ের কারণে তিনি ন্যায় বিচার পেয়েছেন। তাঁর জন্যই সন্তানের চিকিৎসা করাতে পেরেছিলেন, মিলেছিল খোরপোষের টাকা। এরপর বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের পা ছুঁয়ে প্রণাম করতে যান তিনি। তবে জাস্টিস গঙ্গোপাধ্যায় জানান, তিনি কারোর পা ছুঁয়ে প্রণাম গ্রহণ করেন না। কেউ তাঁর পা ছুঁয়ে প্রণাম করুক এটা চান না বলে জানান তিনি।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর