আদিত্যনাথের পর মুখ্যমন্ত্রী পদে আরও এক ‘যোগী’? রাজস্থানে কুর্সির দাবিদার বালকনাথ, কে তিনি?

বাংলা হান্ট ডেস্ক : আবার সরকার বদল রাজস্থানে (Rajsthan)। পদ্মঝড়ে উড়ে গেল কংগ্রেস (Congress)। এই নিয়ে বিগত দুই দশকে কোনো রাজনৈতিক দলই পরপর দুইবার ক্ষমতায় আসেনি। আর এবারও সেই রেকর্ড কায়েম রাখল মরুরাজ্যের ভোটাররা। এখনো পর্যন্ত পাওয়া রিপোর্ট অনুযায়ী মোট 199টি আসনের 111 টিই দখল করেছে বিজেপি।

   

বিজেপি (BJP) ভোটে জেতার সাথে সাথে প্রশ্ন উঠছে রাজস্থানে মুখ্যমন্ত্রীর (Rajasthan CM) দায়িত্ব কার ঘাড়ে চাপতে চলেছে। উল্লেখ্য যে, ভোটের আগে কাওকেই মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করেনি বিজেপি। অনেকের দাবী এর কারণ বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সঙ্গে রাজস্থানের দু’বারের মুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ পরিবারের সদস্য বসুন্ধরা রাজের (Basundhara Raj) দূরত্ব৷ আর তার প্রতিফলন দেখা যায় বিজেপির প্রথম দফার প্রার্থী তালিকায়।

উল্লেখ্য যে প্রথম দফায় বসুন্ধরা রাজে ছাড়াও দলের ভিতর বহু সুপরিচিত মুখের নামও দেখা যায়নি। স্বাভাবিক ভাবেই বিদ্রোহ শুরু হয়। তবে শেষমেশ মহারানীর কাছে টিকিট এলেও স্বাভাবিক ভাবেই মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবি থেকে বহুদূরে তিনি। এদিকে আবার কয়েকমাসের মধ্যেই লোকসভা নির্বাচন। মারাঠা রাজপরিবারের সদস্য এবং পরবর্তীতে জাঠ রাজ পরিবারের রানি জাতি সমীকরণে বড় ভূমিকা গ্রহণ করতে পারেন। বসুন্ধরা রাজে ছাড়াও এই তালিকায় নাম রয়েছে কেন্দ্রীয়মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত, মহন্ত বালকনাথ, দিয়া কুমারি, অর্জুন রাম মেঘওয়াল, রাজেন্দ্র রাঠৌর, সতীশ পুনিয়া৷

আরও পড়ুন : কংগ্রেস হারতেই থরহরিকম্প ইন্ডিয়া জোটে, মমতার হাত শক্ত করতে ময়দানে তৃণমূল! শুরু নয়া অভিযান

তবে এবারের নির্বাচনে যিনি হঠাৎ উঠে এসেছেন তিনি মহন্ত বালকনাথ (Mahant Balaknath)৷ অনেকেই তাকে তুলনা করছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Adityanath) সাথে। শুধু তুলনা করছে বললে অবশ্য কম বলা হবে। কারণ ভোটের সময় ‘রাজস্থান কী যোগী’ বলে বিখ্যাত হয়েছেন তিনি। এছাড়া মুখ্যমন্ত্রী পদের বড় দাবীদার গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত। যদিও রাজপুতকে মুখ্যমন্ত্রী করে জাঠ সম্প্রদায় ক্ষুণ্ণ করতে চাইবেন না মোদী শাহ।

mahant balaknath sixteen nine

আরও পড়ুন : ‘সমর্থনের জন্য ধন্যবাদ’, তেলেঙ্গানায় হেরেও জয়ের খুশি পদ্ম শিবিরে! ১ থেকে ৮-এ পৌঁছে বিশেষ বার্তা মোদীর

এছাড়াও এই তালিকায় নাম রয়েছে দিয়া কুমারীর। বসুন্ধরার বিকল্প হিসেবে দিয়াকেই রাজ্যের মুখ করতে পারে বিজেপি। কিন্তু যেখানে 6 মাসের মাথায় লোকসভা নির্বাচন সেখানে নবীন কাওকে এই পদ সামলানোর দায়িত্ব দেয় কিনা তার ওপরেও বড় প্রশ্নচিহ্ন তৈরী হয়েছে। আবার জাতিয় সমীকরণ ঠিক রাখতে রাজস্থানের বিখ্যাত দলিত নেতা এবং কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী অর্জুন রাম মেঘওয়ালও ভালো অপশন হয়ে উঠতে পারে।

আরও পড়ুন : ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’, বাতিল ১৪৪ ট্রেন! ভ্রমণের আগে দেখে নিন তালিকা

তালিকায় নাম রয়েছে রাজেন্দ্র রাঠৌর এবং বিজেপির প্রাক্তন প্রধান সতীশ পুনিয়া। প্রথমজনের ক্ষেত্রে সমস্যা এই যে, তার সাথে RSS এর তেমন যোগাযোগ নেই। তবে প্রশাসন তার নখ দর্পণে। অন্যদিকে সতীশ পুনিয়া রাজস্থান বিজেপির জাঠ প্রতিনিধি। আর জাঠ ভোটব্যাংক খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তবে বসুন্ধরার সাথে সম্পর্ক খারাপ রয়েছে পুনিয়ার। তাই এখন দেখার এসমস্ত সমস্যার সমাধানে কি পদক্ষেপ নেয় বিজেপি এবং কে হয় মরুদেশের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী।

সম্পর্কিত খবর