‘মজা দেখিয়ে দেব’! তৃণমূলের দেবাংশু নয়, ভোটের আগে কাকে হুঁশিয়ারি দিলেন অভিজিৎ?

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ বিচারপতি হিসেবে একের পর এক উল্লেখযোগ্য রায় দিয়ে সাধারণ মানুষের মনে স্থান করে নিয়েছিলেন। এবার সেই অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ই (Abhijit Ganguly) নেমে পড়েছেন ভোট ময়দানে। ২০২৪ লোকসভা নির্বাচনে তমলুক কেন্দ্র থেকে দাঁড়িয়েছেন তিনি। বিজেপির (BJP) টিকিটে ভোটে দাঁড়ানোর পর থেকে রাজ্যের শাসক দলকে একাধিকবার নিশানা করেছেন কলকাতা হাই কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতি। মঙ্গলবার যেমন ফের একবার সুর চড়ালেন তিনি।

আজ পূর্ব মেদিনীপুরের তারাগোড়িয়ার ভীম মন্দিরে পুজো দিতে গিয়েছিলেন তমলুকের বিজেপি প্রার্থী। মন্দির থেকে পুজো দিয়ে বেরিয়ে বর্ধমান দুর্গাপুরের পদ্ম-প্রার্থী দিলীপ ঘোষের প্রশংসা করেন তিনি। অভিজিৎ বলেন, ‘আপনারা জেনে রাখুন দিলীপ ঘোষ খুব ভালো একজন মানুষ’। এরপর বামপন্থীদের পার্টি অফিস ফেরানো প্রসঙ্গেও মন্তব্য করেন বিজেপি প্রার্থী।

   

সম্প্রতি নিশীথ প্রামাণিক বলেন, যেখানে বামপন্থীদের দলীয় কার্যালয় তৃণমূল (TMC) দখল করে রেখেছে, সেগুলি ভোটের পর ফের খুলে দেবে বিজেপি। আবার বামপন্থীদের তাদের পার্টি অফিস ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। এই প্রসঙ্গে অভিজিৎ বলেন, ‘গণতন্ত্রে এমনটাই হওয়া উচিত। বামেদের পার্টি অফিস তৃণমূল কেন দখল করবে? এমনটা হওয়ার কথা নয়’।

আরও পড়ুনঃ রাতে এসো! ছাত্রীদের কুপ্রস্তাব বিশ্বভারতীর আরবি শিক্ষকের, তারপর পড়ুয়ারা যা করল…

তমলুকের বিজেপি প্রার্থীর কথায় ভোট পরবর্তী হিংসার (Post Poll Violence) প্রসঙ্গও উঠে আসে। অভিজিৎ বলেন, ‘আগের ভোটের পর তৃণমূল বিজেপির ওপর প্রচুর সন্ত্রাস করেছে। কত মানুষের ঘর ভেঙেছে, পুড়িয়েছে। চোর-দুর্বৃত্তের দল তৃণমূল। সেই সময়ও পুলিশ প্রশাসন ছিল। তবে তাঁরা তখন সেই পরিস্থিতির সঠিক মোকাবিলা করেননি। এবার এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হলে মজা দেখিয়ে দেব’।

tamluk bjp candidate abhijit ganguly

উল্লেখ্য, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পর বাংলায় ফুটে উঠেছিল ভোট পরবর্তী হিংসার চিত্র। দায়ের হয়েছিল একাধিক অভিযোগ। হাই কোর্টের ভর্ৎসিতও হতে হয়েছিল রাজ্য সরকারকে। সেই সময় অবশ্য বিচারপতির আসনে আসীন ছিলেন অভিজিৎ গাঙ্গুলি। তবে এবার জনতার দরবারে হাজির হয়েছেন তিনি। চব্বিশের লোকসভা ভোটের পর যদি রাজ্যে ‘হিংসা’র ছবি দেখা যায় তাহলে ‘মজা দেখিয়ে দেবেন’ বলেন তিনি।

Sneha Paul
Sneha Paul

স্নেহা পাল, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তরের পর সাংবাদিকতা শুরু। বিগত প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর