দীপাবলির পরেই মিলল চমক! ২৪ ঘন্টায় লাফিয়ে দাম কমল সোনার, প্রতি গ্রাম কিনতে করতে হবে এত খরচ

বাংলা হান্ট ডেস্ক: গত সপ্তাহেই সোনার দাম (Gold Price) সর্বোচ্চ জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিল। এমনকি, দীপাবলির (Diwali) স্পেশাল ট্রেডিং শেষ হওয়ার চার দিন পরে, সোনার মূল্য রকেটের গতিতে বেড়ে ৬১,৯১৪ টাকায় পৌঁছে যায়। যদিও, এর ২৪ ঘন্টার মধ্যেই এই দাম ক্র্যাশ করেছে।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গত শুক্রবার সোনার দাম ১,৩০০ টাকা কমেছে। ফেডের সুদের হার বৃদ্ধির ইঙ্গিতের কারণে এই পতন দেখা গেছে বলে জানা গিয়েছে। এদিকে, সপ্তাহ শেষে সোনার দাম আবারও ৬১ হাজার টাকার নিচে নেমে গেছে। এমতাবস্থায়, চলুন জেনে নিই বর্তমানে সোনার দাম ঠিক কোন জায়গায় দাঁড়িয়ে রয়েছে।

The price of gold is very low in 24 hours

২৪ ঘন্টায় সোনার দাম ১,৩০০ টাকা কমেছে: উল্লেখ্য যে, গত বৃহস্পতিবার, সোনার দাম ৬১,৯০০ টাকার স্তর অতিক্রম করে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এরপরে, ফেড থেকে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে যে ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হতে চলা বৈঠকে সুদের হার বাড়ানো হতে পারে। যার কারণে ডলারের ইনডেক্স বেড়েছে এবং সোনার দাম কমেছে। আর সেই কারণেই ২৪ ঘন্টা পেরোতে না পেরোতেই সোনার দামে প্রায় ১,৩০০ টাকার পতন দেখা গেছে। শুক্রবার ট্রেডিং সেশনের সময়, সোনার দাম ৬০,৬৩৩ টাকার লোয়ার লেভেলে নেমে আসে।

আরও পড়ুন: ক্যুরিয়ার পাঠাতে গেলেই টান পড়বে পকেটে! লুকিয়ে পোস্ট অফিসে GST বসাল কেন্দ্র, লাফিয়ে বাড়ল খরচ

লাইফটাইম হাই থেকে অনেকটা কমেছে দাম: শুক্রবার যখন মাল্টি কমোডিটি এক্সচেঞ্জ বন্ধ হয়েছিল, তখন সোনার দাম ছিল ৬০,৭১৩ টাকা। যেখানে বৃহস্পতিবার সোনার দাম পৌঁছে গিয়েছিল ৬১,৯১৪ টাকায়। এর মানে হল সোনার দাম এখন লাইফটাইম হাই থেকে ১,২০০ টাকা কম রয়েছে। যদিও, শুক্রবার সোনার দাম প্রতি ১০ গ্রামে ৬১,০০০ টাকা ছুঁলেও এর বেশি এগোতে পারেনি। পাশাপাশি, বৃহস্পতিবার ডলার ইনডেক্স বৃদ্ধির চাপ স্পষ্টভাবে দেখা গেছে।

আরও পড়ুন: পাত্তা পাবেনা চীন, এবার ভারতেই তৈরি হচ্ছে এশিয়ার দীর্ঘতম সুড়ঙ্গ! লাগবে বিরাট গুরুত্বপূর্ণ কাজে

বিশেষজ্ঞরা কি জানিয়েছেন: এই প্রসঙ্গে এইচডিএফসি সিকিউরিটিজের কারেন্সি কমোডিটি হেড অনুজ গুপ্ত জানিয়েছেন যে, ফেড থেকে প্রাপ্ত সংকেতগুলির কারণে, সোনার দাম লাইফটাইম হাই থেকে ১,২০০ থেকে ১,৩০০ টাকা কমেছে। তবে, সোনার দামে বৃদ্ধির লক্ষণ রয়েছে। ডলার ইনডেক্স ১০৪-এর নিচে নেমে গেছে। চাহিদাও বেশি রয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক থেকে ক্রমাগত বায়িং হচ্ছে। যার জেরে সোনার দাম বাড়তে পারে।