ফের চালু হল রোমিং? দিল্লি থেকে বিহারে গিয়ে বিপাকে মহিলা, ১ লাখের বিল পাঠাল Airtel

বাংলা হান্ট ডেস্ক: এবার একটি অত্যন্ত চাঞ্চল্যকর খবর সামনে এসেছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, দিল্লি (Delhi) নিবাসী লেখিকা নেহা সিনহা সম্প্রতি বিহারে (Bihar) গিয়েছিলেন। কিন্তু, দেশের এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে যেতেই তাঁকে বিপুল টাকার ধাক্কার সম্মুখীন হতে হয়। অভিযোগ উঠেছে যে, বিহারের সীমান্তবর্তী এলাকা বাল্মীকি নগরে প্রবেশ করার সাথে সাথেই Airtel তাঁকে এক লক্ষ টাকার ফোন বিল ধরিয়ে দেয়। এছাড়াও, তাঁর ফোন সার্ভিসও বন্ধ রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে, তিনি সামগ্রিক পরিস্থিতি এক্স মাধ্যমে শেয়ার করেছেন এবং জানিয়েছেন যে দেশের বাইরে না যাওয়া সত্বেও কিভাবে Airtel তাঁকে একটি ইন্টারন্যাশনাল রোমিং বিল পাঠিয়েছে।

   

নেহা সিনহা এক্স-এ একটি পোস্টের মাধ্যমে বিষয়টি তুলে ধরে জানান “ভয়ানক কেলেঙ্কারি! আমি বিহারের বাল্মীকি নগরে আছি এবং Airtel India আমাকে ১ লক্ষ টাকার বেশি রোমিং বিল পাঠিয়েছে। আমি একজন ভারতীয় নাগরিক হয়ে ভারতের একটি রাজ্যে ভ্রমণ করেছি। এদিকে, Airtel আমার পরিষেবাও বন্ধ করে দেয়। আমাকে খারাপ অবস্থায় ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়।”

আরও পড়ুন: অমান্য করলেই ২০০০ টাকার চালান! কমানো হল স্পিড, এই এক্সপ্রেসওয়ে নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর কাছে চেয়েছেন সাহায্য: এমতাবস্থায়, নেহা সিনহা টেলি কমিউনিকেশন দফতরের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণবকে বিষয়টি খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানিয়েছেন। একটি ফলো-আপ পোস্টে, তিনি জানান যে, Airtel কোনো কারণ বা সতর্কতা ছাড়াই পরিষেবা বন্ধ করে তাঁকে সমস্যায় ফেলেছে। তিনি আরও লিখেছেন, “আসলে, Airtel আমাকে একটি ভুয়ো বিল দিয়েছে। এমনকি, ওই দিন বিল পরিশোধ না করায় তারা সংযোগও বিচ্ছিন্ন করে দেয়।

আরও পড়ুন: অবাক কাণ্ড! ৩৩৩ টাকার চেক নিলাম হল ৯০ লক্ষ টাকায়, কারণ জানলে উড়বে হুঁশ

সিম চালু করার জন্য চাওয়া হয় টাকা: ওয়াইল্ড এবং উইলফুল লেখিকা আরও জানিয়েছেন যে, তিনি অন্য একজনের কাছ থেকে ফোন নিয়ে তারপরে Airtel-এর সাথে যোগাযোগ করেছিলেন। সেখানে তাঁকে জানানো হয় কোম্পানি কিছু করতে পারবে না। পাশাপাশি, সংস্থার তরফে এটাও জানানো হয় যে, তিনি যদি তাঁর ওই সিমটি পুনরায় ব্যবহার করতে চান সেক্ষেত্রে তাঁকে ১,৭৯২ টাকা দিতে হবে।

ক্ষমা চেয়েছে Airtel: সিনহা বলেছেন যে, তিনি এখন Airtel-এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছেন। এরপরে সংস্থাটি তার কাছে ক্ষমা চেয়েছে বলে জানা গিয়েছে এবং যাতে পরিষেবা প্রদানের লক্ষ্যে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায় সেজন্য Airtel তাঁর নম্বরটিও জানতে চায়।