ভারতের নয়, এশিয়ার এই মন্দির করল বিশ্বজয়! রোমের থেকে ছিনিয়ে নিল অষ্টম আশ্চর্যের খেতাব

বাংলা হান্ট ডেস্ক: পৃথিবীতে যে সাতটি আশ্চর্য রয়েছে সেগুলি সম্পর্কে আমরা তো প্রত্যেকেই জানি। এমনকি সেই তালিকায় স্থান রয়েছে ভারতের (India) তাজমহলেরও (Taj Mahal)। তবে, এবার সন্ধান মিলল পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্যের (8th Wonder Of The World)। হ্যাঁ প্রথমে শুনে অবাক হয়ে গেলেও এটা কিন্তু একদমই সত্যি। সবথেকে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই লড়াইতে ইতালিকে (Itali) টেক্কা দিল এশিয়া (Asia)।

   

This temple got the title of eighth wonder of the world

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী জানা গিয়েছে যে, এবার পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্য হিসেবে বিবেচিত হবে এশিয়ার আঙ্করভাট মন্দির। মূলত, কম্বোডিয়ার এই প্রাচীন মন্দির অষ্টম স্থানের লড়াইতে হারিয়ে দিয়েছে ইতালির পম্পেইকে। এই মন্দিরটি আগেই ইউনেসকোর তরফে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের তকমা পেয়েছিল। পাশাপাশি মন্দিরটি তৈরি হয়েছিল দ্বাদশ শতাব্দীতে রাজা দ্বিতীয় সূর্যবর্মনের আমলে।

আরও পড়ুন: চন্দ্রযানের পর ফের বড়সড় সাফল্য! আদিত্য-L1 নিয়ে বিরাট সুখবর শোনালেন ISRO প্রধান

এমতাবস্থায়, এবার বিশ্বের অষ্টম আশ্চর্য হিসেবে বিবেচিত হয়ে নজির গড়ল এই মন্দির। প্রতিবছর সমগ্র বিশ্বজুড়ে হাজার হাজার পর্যটক এই মন্দিরটি চাক্ষুষ করতে ছুটে যান। পাশাপাশি এই মন্দিরের অনবদ্য স্থাপত্য আকৃষ্ট করে প্রত্যেককেই। আর এই কারণেই ফের একবার নজির তৈরি করল আঙ্করভাট মন্দির।

আরও পড়ুন: যাত্রী সমস্যা! ওদিকে ট্রেনে স্লিপার কমিয়ে AC কোচ বাড়াচ্ছে রেল, নেপথ্যের কারণ অবাক করবে

জানিয়ে রাখি যে, কম্বোডিয়ায় আংকরে অবস্থিত এই মধ্যযুগীয় মন্দিরটি বিশ্বের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় স্মৃতিস্তম্ভের তালিকায় রয়েছে। এটি বিষ্ণুমন্দির হিসেবে বিবেচিত হয়। এখানে প্রতিদিন প্রার্থনা ও ধ্যানের জন্য বহু বৌদ্ধ সন্ন্যাসী ও ভক্তরা ভিড় জমান। মন্দিরটির চারদিকে রয়েছে পরিখা ও ৩.৬ কিলোমিটার দীর্ঘ প্রাচীর। এছাড়াও, জানিয়ে রাখি যে, আঙ্করভাট মন্দিরে দুই ধরণের পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে। সেগুলি হল টেম্পল মাউন্টেন বা পাহাড়ি মন্দির ধাঁচ এবং গ্যালারি মন্দির ধাঁচ।

This temple got the title of eighth wonder of the world

এদিকে, প্রায় ৫০০ একর জমির উপর তৈরি সুবিশাল এই মন্দিরের দেওয়ালে হিন্দু ও বৌদ্ধ দুই ধর্মেরই সংস্কৃতির মেলবন্ধন পরিলক্ষিত হয়। পাশাপাশি, দেওয়ালে খোদাই করা হয়েছে হিন্দু ধর্মের নানা নির্দশনও। উল্লেখ্য যে, আঙ্করভাট মন্দিরের সাথে অন্যান্য মন্দিরের প্রধান পার্থ্যক্য হল এটির সম্মুখভাগ পশ্চিমমুখী অবস্থায় রয়েছে। আর এইভাবেই অনবদ্য স্থাপত্যশৈলী এবং মন্দিরের ধর্মীয় তাৎপর্য আকৃষ্ট করে বহু পর্যটককেই।