১৮ লাখ ইট, ২০ হাজার টন মার্বেল-গোলাপী বেলেপাথর! কত কোটি ব্যয়ে তৈরি আবু ধাবির হিন্দু মন্দির?

বাংলাহান্ট ডেস্ক : অবশেষে দীর্ঘ উৎসাহ আনন্দের দিন এগিয়ে আসতে আর খুব বেশি সময় নেই। সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর রাজধানী আবু ধাবিতে উদ্বোধন হতে চলেছে প্রথম হিন্দু মন্দিরের। প্রাণ প্রতিষ্ঠা করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। চোখ ধাঁধানো কারুকার্য এবং ভাস্কর্যের ছোঁয়া এই মন্দিরে। এই মন্দির নির্মাণ করতে কত খরচ হয়েছে জানেন? জানলে মাথা ঘুরে যেতে পারে অনেকেরই।

   

সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে আবু মুরিয়েকা এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে এই মন্দির। মোট ৫.৪ হেক্টর জমিতে তৈরি করা হয়েছে BAPS স্বামী নারায়ণ মন্দির। এছাড়াও এখানে পার্কিংয়ের জন্য আরও ১১ হেক্টর জমি রয়েছে। মন্দিরের অপূর্ব নিখুঁত কারো কাজ দেখলে চোখ সরানো যাবে না। সাদা মার্বেল এবং গোলাপী বেলেপাথরে নানা নকশা খোদাই করে মন্দিরের থামগুলি তৈরি হয়েছে।

আরোও পড়ুন : বায়ুসেনার লক্ষ্যভ্রষ্ট বোমা পড়ল ধান জমিতে, কলাইকুন্ডায় তুমুল আতঙ্ক! ক্ষয়ক্ষতিও অনেক

এর জন্য দেশ-বিদেশ থেকে বহু দক্ষ কারিগরদের আনা হয়েছে। প্রাচীণ নকশাগুলিকে মাথায় রেখেই ভাস্কর্য ফুটিয়ে তোলা হয়েছে পাথরে। BAPS কমিটির পক্ষ থেকে জানা যায়, আবু ধাবির হিন্দু মন্দিরে একসঙ্গে ১০ হাজার পুণ্যার্থী উপাসনা করতে পারবেন। কেবলমাত্র হিন্দু নয়, সব ধর্মের দর্শনার্থীদের জন্য এই স্বামী নারায়ণ মন্দিরের দ্বার খোলা থাকবে।

আরোও পড়ুন : বাড়ল শিয়ালদা ডিভিশনের একাধিক ট্রেনের স্টপেজ! উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের জন্য বড় ঘোষণা রেলের

মন্দির চত্বরে থাকবে প্রার্থনা ঘর, কমিউনিটি সেন্টার, লাইব্রেরি, শিশুদের পার্ক এবং অ্যাম্ফিথিয়েটারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ১৮ লাখ ইট, ২০ হাজার টন মার্বেল-গোলাপী বেলেপাথরে নির্মাণ করা হয়েছে এটি ! এই মন্দির নির্মাণ করতে মোট ৭০০ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। যা চন্দ্রযান-৩ মিশনের থেকেও অনেক বেশি।

মন্দিরে কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, এই মন্দির নির্মাণের যাবতীয় দায়িত্ব ছিল BAPS স্বামী নারায়ণ সংস্থার। মুসলিম দেশের বুকে গ্র্যান্ড এই হিন্দু মন্দির নির্মাণ করে রীতিমতো সকলের নজর কেড়ে নিয়েছেন তারা। সংস্থার আন্তর্জাতিক বিষয় সংক্রান্ত প্রধান আধিকারিক স্বামী ব্রহ্মবিহারী দাস জানিয়েছেন বিস্তারিত।

baps temple

তিনি বলেন, ‘এটি হিন্দুদের পবিত্র পুজো স্থল। তবে BAPS হিন্দু মন্দিরের মূল বিচারধারা হল, পৃথিবীতে সকল ধর্মের মধ্যে সদ্ভাব বজায় রাখা। তাই মন্দির শান্তির প্রতীক হয়ে থাকবে। সহিষ্ণুতা এবং সৌহার্দ্যের প্রতীক হিসেবে তৈরি করা হয়েছে এই মন্দির। সংযুক্ত আরব আমিরশাহী এবং ভারতের মধ্যে সম্পর্ক আরও দৃঢ় এবং অটুট করবে BAPS স্বামী নারায়ণ মন্দির। এমনটাই আশা তাঁর।