ডাক পাননি স্থানীয় শিল্পীরা, আকাশে তৃণমূলের লোগো! বিষ্ণুপুর মেলা নিয়ে বিষ্ফোরক সৌমিত্র খাঁ

বাংলা হান্ট ডেস্ক : বিষ্ণুপুর (Bishnupur) মেলা শুরু হতে না হতেই তৈরি হল রাজনৈতিক বিতর্ক। সরকারি টাকায় আয়োজিত ঐতিহ্যবাহী এই মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আকাশে তৃণমূলের (Trinamool Congress) প্রতীক সম্বলিত বেলুন ওড়ানো দেখে বেজায় খাপ্পা বিরোধীরা। সরকারি অনুষ্ঠানে দলীয় লোগো কেন? এই প্রশ্ন তুলেছেন সাধারণ মানুষও। আর এবার সামনে এল নয়া অভিযোগ।

   

এবছর ঐতিহ্যবাহী বিষ্ণুপুর মেলার ৩৬তম বছর। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে সুর, শিল্প ও সংস্কৃতির এই মেলার ভার্চুয়াল মাধ্যমে উদ্বোধন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamta Banerjee)। সেখানেই ফ্লাইং লোগো হিসেবে আকাশে ওড়ানো হয় ‘বিষ্ণুপুর মেলা’ ও ‘ঘাসফুল লোগো’। যা নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। সেই তরজার রেশ কাটার আগেই উঠে এল স্থানীয় শিল্পীদের বঞ্চনার অভিযোগ। বিষ্ফোরক এই অভিযোগ এনেছেন বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁ (Saumitra Khan)।

শুক্রবার সন্ধ্যা নামতেই নিজের ফেসবুক পেজ থেকে একটি লাইভ করেন তিনি। বলা ভালো সামাজিক মাধ্যমে এসে শাসকদলের তুলোধুনো করেছেন তিনি। সৌমিত্র খাঁ দাবি করেন, বিষ্ণুপুরের এই ঐতিহ্যবাহী মেলা থেকে বঞ্চিত স্থানীয় শিল্পীরাই। যারা বিষ্ণুপুরের শিল্পকে জাতীয় স্তরে পৌঁছে দিয়েছে আজ তাদেরকেই নাকি ডাকা হয়নি। বিজেপি নেতার কথায়, ‘যে আমাদের বিষ্ণুপুরের মান উজ্জ্বল করেছে সেই মুখার্জি বোনকেও ডাকা হয়নি।’

আরও পড়ুন : বিচারপতি সিনহার স্বামীকে বারবার তলব! CID-র গতিপ্রকৃতি নিয়ে প্রশ্ন অভিজিৎ গাঙ্গুলির

এখানেই শেষ নয়, বঞ্চনা প্রসঙ্গে সৌমিত্র খানের অভিযোগ, ‘আমিও সাত আট বছর এই মেলার সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। তবে এই প্রথম দেখলাম যে, মঞ্চের কাছে আসার জন্য পাস দিতে হবে। এইবার প্রথম দেখলাম যে, পাস দিতে হচ্ছে। তবে এবারের মেলা কি কেবল নেতা মন্ত্রীর বাড়ির ছেলেমেয়েরাই দেখবেন? সাধারণ মানুষ এই পাস কোথায় পাবেন? এটা খুবই লজ্জাজনক বিষয়।’

আরও পড়ুন : বঙ্গোপসাগরের ঘূর্ণাবর্ত! মাটি হবে দক্ষিণবঙ্গের শীতের আমেজ, বৃষ্টি নিয়ে IMD-র ভয়ঙ্কর রিপোর্ট

শাসকদলের পাশাপাশি সৌমিত্র খাঁ তোপ দেখেছেন রাজ্যের সরকারি কর্মকর্তাদেরও। দাবি করেছেন, সরকারি অফিসারদের ফোন করলে তারাও ফোন ধরেননা। বিজেপি নেতার প্রশ্ন, রাজনৈতিক নেতাদের প্রতি এত ভয় থাকলে কাজ করতে আসারই কী দরকার? তবে এইদিন লাইভে তিনি যে কেবলই শাসকদলকে তোপ দেগেছেন তাই নয়। সেই সাথে বিষ্ণুপুরের ঐতিহ্যের কথাও গর্ব করে বলেছেন তিনি।

আরও পড়ুন : সরকারি কর্মচারীদের ‘ললিপপ’ দেওয়া হল! DA বৃদ্ধির ঘোষণায় বড় ফাঁকি, বুঝিয়ে দিলেন শুভেন্দু

bishnupur mela 1511 1 1

সৌমিত্র খাঁ বলেন, ‘বিষ্ণুপুর মেলায় আসুন। এখানকার রেলওয়ে ব্রিজ থেকে শুরু করে মন্দির সবকিছুই নতুনভাবে সাজানো হচ্ছে। আর এই সবটাই হচ্ছে নরেন্দ্র মোদীর ইচ্ছায়। তিনি বিষ্ণুপুরকে নিয়ে যে কথা দিয়েছিলেন সেই কথা রেখেছেন।’ রাজ্যবাসীকে মেলায় আসার আমন্ত্রণ জানালেও তিনি নিজে যে এই মেলা বয়কট করছেন সেকথা বেশ স্পষ্টভাবেই জানিয়ে দিয়েছেন। সেই সাথে ভ্রুকুটির সুরে এটাও জানিয়ে দিলেন, তার কাছে পাস নেই।