“মহাকাশে ভারত যা করছে তা বিস্ময়কর”, ISRO-র সাফল্যে অবাক ইউরোপিয় মহাকাশ সংস্থা! উঠল প্রশংসার ঝড়

বাংলা হান্ট ডেস্ক: এবার আন্তর্জাতিক মঞ্চে প্রশংসা পেল ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা তথা ISRO (Indian Space Research Organisation)। মূলত, ইউরোপিয় মহাকাশ সংস্থার (European Space Agency, ESA) ডিরেক্টর জোসেফ অ্যাশবাচার ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার প্রশংসা করেছেন। সাম্প্রতিক সফল উৎক্ষেপণগুলির পরিপ্রেক্ষিতে তিনি ISRO-এর প্রশংসা করেন। অ্যাশবাচার বলেছেন যে, মহাকাশে এবং বিশেষ করে চাঁদে ভারতের সাফল্যের বিষয়টি বিস্ময়কর।

   

ESA-এর ৩২৩ তম কাউন্সিল সভা অনুষ্ঠিত হয়: এই প্রসঙ্গ জানিয়ে রাখি যে, প্যারিসে ESA-এর ৩২৩ তম কাউন্সিল সভা অনুষ্ঠিত হয়। যেটির পরিচালনা করার পরে, অ্যাশবাচার সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম X-এ একটি পোস্টে ISRO-র প্রশংসা করেছেন। জানিয়ে রাখি যে, ISRO চেয়ারম্যান এস সোমনাথও এই বৈঠকে অংশ নেন।

European Space Agency surprised by the success of ISRO.

আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সাথে সহযোগিতার বিষয়টিকে ছোট করা যাবে না: গত ২৬ ও ২৭ মার্চ ESA কাউন্সিলের ৩২৩ তম অধিবেশনের জন্য প্যারিসে ESA-এর সদস্য রাষ্ট্রগুলি মিলিত হয়। সেই সময়ে, ইউরোপিয় বিজ্ঞানীরা জোর দিয়ে জানিয়েছেন যে, আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সাথে সম্পর্ক জোরদার এবং গভীর সহযোগিতার গুরুত্বকে কখনোই ছোট করা যাবে না।

আরও পড়ুন: বিদেশি রাষ্ট্রদূতের ইশারায় কাজ! নিজের দেশ নিয়েই বিস্ফোরক মুইজ্জু, শোরগোল মলদ্বীপে

“মহাকাশে ভারত যা অর্জন করছে…”: এদিকে, জোসেফ অ্যাশবাচার জানিয়েছেন যে, “মহাকাশে, বিশেষ করে চাঁদের ক্ষেত্রে ভারত যা অর্জন করেছে, তা বিস্ময়কর। আমরা আজ ESA কাউন্সিলে ISRO চেয়ারম্যান ডঃ এস. সোমনাথের এর সাথে দেখা করেছি। ESA-ISRO সহযোগিতার বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে আরও জানতে প্রতিনিধিদের জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ছিল।” তিনি আরও বলেন, “আন্তর্জাতিক অংশীদারদের সঙ্গে সম্পর্ক জোরদার ও গভীর সহযোগিতার কৌশলগত গুরুত্বকে ছোট করা যাবে না।”

আরও পড়ুন: ১ এপ্রিল থেকেই গাড়ি কিনতে গেলে পকেটে পড়বে টান! কতটা বাড়বে দাম? জানিয়ে দিল সংস্থাগুলি

“আমরা খুব গর্বিত”: পাশাপাশি, মহাকাশচারী থমাস পেসকুয়েট বলেছেন যে, “প্যারিসে ISRO-র চেয়ারম্যান সোমনাথ এবং আমাদের ডিরেক্টর অ্যাশবাচারকে স্বাগত জানাতে পেরে আমরা অত্যন্ত গর্বিত। এই বৈঠকে দুই নেতৃত্বের মধ্যে একটি উৎসাহী কথোপকথন হয়।” উল্লেখ্য যে, ২০২৩ সালে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে চন্দ্রযান-৩-এর সফল অবতরণ এবং ভারতের প্রথম সৌর মিশন আদিত্য-L1-এর উৎক্ষেপণের মাধ্যমে ভারত মহাকাশ গবেষণার ক্ষেত্রে বিরাট ইতিহাস তৈরি করেছে।

Sayak Panda
Sayak Panda

সায়ক পন্ডা, মেদিনীপুর কলেজ (অটোনমাস) থেকে মাস কমিউনিকেশন এবং সাংবাদিকতার পোস্ট গ্র্যাজুয়েট কোর্স করার পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। ২ বছরেরও বেশি সময় ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর