টাইমলাইনভারতরাজনীতি

দৈনিক ভাস্করের অফিসে আয়কর দপ্তরের হানা, গণতন্ত্রের কণ্ঠরোধ করছে কেন্দ্র, টুইট মমতার

বাংলা হান্ট ডেস্কঃ করোনা পরিস্থিতি চলাকালীন একদিকে যখন মৃত্যুর সঠিক সংখ্যা এবং অব্যবস্থা নিয়ে যথেষ্ট সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছিল কেন্দ্র সরকারকে, তখন সঠিক তথ্য তুলে আনার চেষ্টা করেছিল দৈনিক ভাস্করের মত সংবাদমাধ্যমগুলি। এ ধরনের খবরগুলি শেয়ার করে সরকারের বিরুদ্ধে যথেষ্ট সরব হয়েছিল বিরোধীরাও। এবার সেই দৈনিক ভাস্করের (Dainik Bhaskar) অফিসেই হানা দিল আয়কর দপ্তর।

উত্তরপ্রদেশে গঙ্গায় ভেসে যাওয়া লাশ, বিভিন্ন রাজ্যে ভ্যাকসিন না মেলা, চিকিৎসার অব্যবস্থা বারবার উঠে এসেছে এই সংবাদ মাধ্যমের খবরে। সেই কারণেই এবার আয়কর হানা, উঠছে বড়োসড়ো প্রশ্ন! আয়কর দপ্তরের এই হানার পরেই এদিন এই বিষয়ে টুইট করেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি (Mamata Banerjee)।

তিনি লেখেন, ” আমি এই প্রতিহিংসামূলক আচরণের তীব্র বিরোধিতা করছি। এর লক্ষ্য সত্যকে বাইরে বেরিয়ে আসতে না দেওয়ায় এবং তার কন্ঠরোধ করা। এটি এমন এক ধরনের হিংসা যা গণতন্ত্রের সাধারণ নীতিগুলিকে হনন করে। সংবাদমাধ্যমের প্রত্যেককে আমি দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হতে অনুরোধ করছি। আমরা একসাথে কিছুতেই এই স্বৈরতান্ত্রিক সেনাকে সফল হতে দেবো না।”

অন্য একটি টুইটে তিনি এও লেখেন মহামারীর সময় যেভাবে নরেন্দ্র মোদীজী (Narendra Modi) দেশকে নেতৃত্ব দিতে এবং পরিস্থিতি সামলাতে ব্যর্থ হয়েছেন সাহসের সঙ্গে রিপোর্ট করেছে দৈনিক ভাস্কর। শুধু মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিই নয়, এ বিষয়ে মুখ খোলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও (Arvind Kejriwal)। তিনি বলেন, “বিজেপির বিরুদ্ধে যে আওয়াজ তোলার চেষ্টা করবে তাঁকে দমিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। এটা একটা ভয়ঙ্কর মানসিকতা।”

Mamata Banerjee

 

এছাড়া এই ঘটনার নিন্দা করেছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলতও (Ashok Gahlot)। তার মতে এটি ফ্যাসিস্ট মানসিকতার পরিচয়। যদিও আয়কর দপ্তরের মতে একাধিক ক্ষেত্রে কর ফাঁকি দিয়েছে দৈনিক ভাস্কর। আর সেই কারণেই, তাদের বিভিন্ন অফিসে তল্লাশি চালাচ্ছেন তারা। আজ প্রায় ঘন্টাখানেক ধরে চলে এই তল্লাশি অভিযান। এখন আগামী দিন এই ঘটনা কোন দিকে মোড় নেয় সেদিকেই তাকিয়ে থাকবে সকালে।

উল্লেখ্য, দু’দিন আগে Newsclick নামের একটি ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ৩৮ কোটি টাকার আর্থিক তছরুপ নিয়ে বড়সড় তথ্য পেয়েছিল ED। সেই নিউজ পোর্টাল আর তাঁর প্রোমোটার শ্রীলঙ্কা-কিউবা বংশোদ্ভুত এক ব্যবসায়ী নেভিল রয় সিঙ্ঘমের সঙ্গে একটি চুক্তি করেছিল। যেটি সন্দেহজনক ছিল। ‘PPK Newsclick Studio Pvt Ltd’ ৩৮ কোটি টাকার একটি বড় ফান্ড হাসিল করেছিল, যেটি ওই ব্যবসায়ীর সুত্রেই এসেছিল বলে জানা গিয়েছে। আর তাঁর যোগ চীনের সঙ্গে রয়েছে।

টাইমস অফ ইন্ডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী, ইডির সূত্র ওই মামলায় বড়সড় তথ্য দিয়ে জানিয়েছে যে, নেভিলের সম্পর্ক চীনের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির একটি সংগঠনের সঙ্গে রয়েছে। ‘ভীমা কোরেগাঁও” হিংসার সঙ্গেও ওই পোর্টালের সম্পর্ক ছিল, কারণ তাঁরা যেই টাকা পেয়েছিল তাঁর কিছু অংশ ভীমা কোরেগাঁও-এর সঙ্গে যুক্ত এক তথাকথিত সমাজকর্মীর অ্যাকাউন্টে গিয়েছিল।

Related Articles

Back to top button