আগামী রবিবার পর্যন্ত টানা দুর্যোগ, হলুদ সতর্কতা দক্ষিণবঙ্গে! কী পূর্বাভাস আবহাওয়া দফতরের?

বাংলা হান্ট ডেস্ক : দিনভর অস্বস্তিকর গরমের পর বিকেল হতেই দমকা হাওয়ার ঝাঁপটা। সেই সাথে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাতের আশঙ্কার কথা জানালো আবহাওয়া (Weather) দফতর। দক্ষিণবঙ্গে (South Bengal) এখন তাপপ্রবাহের সম্ভাবনা না থাকলেও আগামী শনিবার থেকে ২ এপ্রিল (মঙ্গলবার) পর্যন্ত বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাত হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে হাওয়া অফিস (India Meteorological Department)। এছাড়াও সাইক্লোন ন্যাভেলের (Cyclone Neville) ভয় তো রয়েইছে।

   

চৈত্র মাসের শুরুর থেকেই গরম তার খেল দেখাতে শুরু করেছে। গত কয়েকদিনে তাপমাত্রাও বেড়েছে অনেকটা। আগামী কয়েকদিনে তাপমাত্রা আরও বাড়বে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতর। সেই সাথে বাড়বে বৃষ্টির সম্ভাবনাও‌। বৃহস্পতি, শুক্র এবং শনিবার বৃষ্টির সম্ভাবনা বাড়বে দক্ষিণবঙ্গে। সেই সাথে তাপমাত্রাও ছাড়াবে ৩৬ ডিগ্রির ঘর।

হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, মার্চ মাসেই পশ্চিমের জেলাগুলিতে বিশেষ করে পুরুলিয়া, বাঁকুড়ার তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি পার করে যেতে পারে। তবে আপাতত বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাতে ভিজতে পারে বীরভূম, মুর্শিদাবাদ ও নদিয়া। শুক্রবার বৃষ্টি হতে পারে বীরভূম এবং মুর্শিদাবাদে। বাঁকুড়া, পুরুলিয়া সহ বাকি জেলা এই দু’দিন শুষ্ক থাকবে বলে জানাচ্ছে আবহাওয়া দফতর।

আরও পড়ুন : শোয়েব-সানিয়ার পুনরাবৃত্তি! এবার ভারতীয় তরুণীকে ধোঁকা দিলেন পাকিস্তানের সমকামী যুবতী

তবে বৃষ্টি ‌‌বাড়বে শনিবার‌। এইদিন উত্তর ২৪ পরগনা, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, কলকাতা, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর, বীরভূম, মুর্শিদাবাদ এবং নদিয়ায় বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। একই সাথে উঠবে ঝড়। বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘন্টায় ৩০-৪০ কিলোমিটার।

আরও পড়ুন : ‘অল ইজ় নট ওয়েল’! আমরণ অনশনে ‘থ্রি ইডিয়টস’-এর র‌্যাঞ্চো, কেন ধর্নায় বসেছেন সোনম ওয়াংচুক?

শনিবারের দুর্যোগের রেশ কাটতে না কাটতেই রবিবার ফের একপ্রস্থ বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে খবর। এইদিন প্রায় সমগ্র দক্ষিণবঙ্গের জন্যই সতর্কতা জারি করেছে মৌসম ভবন। পশ্চিমের বাঁকুড়া পুরুলিয়া থেকে শুরু করে উপকূলীয় জেলা গুলিতেও বৃষ্টি হবে বলে খবর। এইদিন মোট ১৫ জেলার জন্য হলুদ সতর্কতা জারি করেছে আলিপু্র হাওয়া অফিস।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর