‘হোটেল রুমে ৪ ঘণ্টা কী করছিল?’ সায়ন্তিকা প্রসঙ্গে বিস্ফোরক জায়েদ খান

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক : বাংলা কাঁপানোর পর সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায় (Sayantika Banerjee) পাড়ি দিয়েছিলেন পড়শিদেশে। একসপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে কাজও করেছিলেন তিনি। তবে তারপরেই ঘটে যায় গন্ডোগোল। শ্যুটিং ছেড়ে মাঝপথেই কলকাতায় ফিরে আসেন তিনি। অভিনেত্রীর অভিযোগ, কোরিওগ্রাফার মাইকেল নাকি তার সাথে অভদ্র আচরণ করেছে।

ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পর খুব স্বাভাবিকভাবেই সরগরম হয়ে ওঠে দুই দেশের মিডিয়া। অভিনেত্রী অভিযোগের আঙুল তোলেন প্রযোজক মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, প্রযোজক নাকি সবটা জেনেও চুপ করে ছিলেন। এদিকে মনিরুলের বক্তব্য আবার সম্পূর্ণ ভিন্ন। তিনি তো সোজা সায়ন্তিকার চরিত্র তুলেই প্রশ্ন করে বসেছেন।

এইদিন সায়ন্তিকার দিকে আঙ্গুল তুলে ‘ছায়াবাজ’ ছবির প্রযোজক জিজ্ঞেস করেন, শটের মাঝে বিরতি নিয়ে হোটেলের ঘরে চার ঘণ্টা ছবির নায়কের সঙ্গে কী করছিলেন? প্রশ্নটা যে আদতেই কুরুচিপূর্ণ তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। মনিরুলের কথায়, ‘‘গানের শুটিংয়ে পোশাক পরিবর্তন করার জন্য ২টোর সময় হোটেলে যান নায়ক-নায়িকা। ফিরে আসেন সন্ধ্যা ৬টায়। ড্রেস চেঞ্জ করতে চার ঘণ্টা সময় লাগে, এমনটি কখনও দেখিনি!’’

আরও পড়ুন : পঞ্চমী এখন অতীত, এই সুন্দরীর সাথে নয়া সিরিয়াল নিয়ে ফিরছেন রাজদীপ! রয়েছে ধামাকাদার চমক

বিষয়টা নিয়ে জলঘোলা হতেই মুখ খুলেছেন ছবির নায়ক জায়েদ খান। তিনি বলেন, ‘কেউ কেউ আসলে ঘোলাজলে মাছ ধরতে নেমেছেন। আমাকে খারাপ করে দেখানোর চেষ্টা করে চলেছে। এ ছাড়াও কস্টিউমের ব্যাপারে সমস্যা ছিল। লেদারের কিছু পোশাকের প্রয়োজন ছিল। সেই প্রয়োজনের কথাও জানানো হয়েছিল প্রযোজককে। পোশাক পরিবর্তন করতে গিয়ে পোশাকই পাওয়া যায়নি। তার বিকল্প কী হবে, সেটা ঠিক করবে কে?’

আরও পড়ুন : শো ক্যান্সেল, জটিল রোগ বাসা বেঁধেছে শরীরে! অসুস্থতা নিয়ে মুখ খুললেন খোদ নচিকেতা

sayantika 11

ঢালিউড অভিনেতার আরও সংযোজন, ‘আর সায়ন্তিকা পেশাদার অভিনেত্রী। তিনি বিরতির ওই সময়টায় হোটেলে যান। প্রযোজককে হোটেলের পাওনা মিটিয়ে দেওয়ার দেওয়ার কথা বলেছিলেন, কিন্তু প্রযোজক সেটা পাঠাননি। মূলত দেরি হওয়ার এটাই কারণ। এটাকে ইস্যু করার কিছুই নেই। আসল ঘটনা ঘুরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। কিছু মানুষ আমার চরিত্র নিয়ে কথা তুলে আমাকে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা করছেন।’

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর