১৮০ ডিগ্রি টুইস্ট! দরাজ গলায় ভারতের প্রশংসায় ড্রাগন, মোদীর জয়ধ্বনি চিনে

   

বাংলা হান্ট ডেস্ক : কথায় আছে প্রতিবেশী ঠিক না হলে ঘরে শান্তি আসেনা। ভারতের (India) অবস্থাও কিছুটা সেরকম। তিন দিকের তিন দেশ সবসময়ই ফণা তুলে আছে কখন এই দেশটিকে ছোবল মারা যায়। এক পাকিস্তান তো নিত্যনতুন ফন্দি এঁটেই চলেছে অন্যদিকে বাংলাদেশও কিছু কম যায়না। তবে ভারতের জন্য সবচেয়ে ভয়ানক হল চিন‌ (China)। কারণ বাকি দুই দেশ মুখে মারিতং জগত হলেও ড্রাগন সরকার কিন্তু সত্যিকারেরই যথেষ্ট শক্তি ধরে‌। আর এবার সেই চিনের (China) মুখেই ভারতের (India) গুণগান।

হ্যাঁ, বিষয়টা খানিকটা ভূতের মুখে রাম নামের মত শোনালেও সম্প্রতি এমনটাই ঘটেছে। ভারতের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ চিনের সরকারি সংবাদপত্র গ্লোবল টাইমসের পাতা মোদীর জয়গানে ভরে গেছে। ব্যবসা, সংস্কৃতি, অর্থনীতি এবং রাজনীতির নিরিখে ভারতের ভূয়সী প্রশংসা করে চিন বলেছে, গোটা বিশ্বের সামনে ভারতের মর্যাদা আজ অনেক উঁচুতে।

স্বনামধন্য এই সংবাদমাধ্যমে লেখা হয়েছে, ‘দ্রুত অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের কারণে ভারতের আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। তিনি (নরেন্দ্র মোদী) আজ বিশ্বে আত্মবিশ্বাস নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন এবং গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হয়ে উঠেছেন।’ অর্থাৎ এবার চিনও স্বীকার করতে বাধ্য হয়েছে যে, ভারত সত্যিই দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। লোকসভা নির্বাচনের আগে চিনের থেকে এই প্রশংসা নরেন্দ্র মোদীর জন্য বেশ লাভবান প্রমাণিত হবে বলেই মনে করছেন দেশের রাজনৈতিক কারবারিরা।

আরও পড়ুন : সাদা বালির চরে বিছানো নীল জলের চাদর! কোথায় গেলেন নরেন্দ্র মোদী, জায়গার নাম শুনলে এক্ষুনি ছুটবেন

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দিনকয়েক আগেই রাশিয়া সফরে গিয়েছিলেন বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর। সেখানে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে দেখা হলে তিনি দরাজ গলায় মোদীর ভূয়সী প্রশংসা করেছিলেন। সেই সাথে প্রধানমন্ত্রী যাতে রাশিয়া ঘুরতে যান তারও আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন তিনি। তবে বন্ধুদেশ রাশিয়ার তরফ থেকেও এই উষ্ণ আমন্ত্রণ প্রত্যাশিত হলেও চিনের থেকে এই মন্তব্য যে একেবারেই অনভিপ্রেত ছিল সেকথা বলাই বাহুল্য।

আরও পড়ুন : ১৫০০ যাত্রী, ৬০ কিমি গতি! লাইনম্যানের একটি ভুলে পাকিস্তানে মৃত্যু ৩০০-র বেশি মানুষের

গ্লোবাল টাইমসের এই প্রতিবেদনে খোদ নরেন্দ্র মোদী এবং দেশের জন্য নেওয়া তার সমস্ত সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়ে লেখা হয়েছে, গত ১০ বছরে, ভারত সরকার বৈশ্বিক বাণিজ্য, সংস্কৃতি এবং রাজনীতি সহ অনেক বিষয়ে দারুণ সব পন্থা গ্রহণ করেছে। উল্লেখ্য, এই নিবন্ধটির লেখক হলেন চীনের ফুদান ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর সাউথ এশিয়ান স্টাডিজের পরিচালক ঝাং জিয়াডং। তিনি লিখেছেন, ‘আমি সম্প্রতি দুবার ভারত সফর করেছি, যা গত চার বছরে আমার প্রথম সফরও। আমি দেখতে পেলাম যে ভারতের অভ্যন্তরীণ ও বিদেশী পরিস্থিতি চার বছর আগের তুলনায় উল্লেখযোগ্যভাবে পরিবর্তিত হয়েছে।’

আরও পড়ুন : রাম মন্দিরের পাশেই ভারত তথা এশিয়ার প্রথম AI শহর! গেলেই চমকে উঠবেন

india china

তার সংযোজন, ‘অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ভারত অসামান্য উন্নতি করেছে। এবং দেশটি দ্রুত বর্ধনশীল প্রধান অর্থনীতির একটিতে পরিণত হওয়ার পথে রয়েছে।’ সেই সাথে ভারতের পণ্য রপ্তানির উপরেও জোর দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি চিন এবং ভারতের বাণিজ্যিক সম্পর্ক যাতে আরও মধুর হয় তাই ভারত থেকে চিনি আমদানি করারও পরামর্শ দিয়েছেন‌। জিয়াডং-র মতে, কূটনৈতিক ক্ষেত্রে, ভারত দ্রুত এগিয়ে চলেছে। রাশিয়া, জাপান, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মত উন্নত দেশের সাথে ভারতের সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ককে বেশ প্রশংসার নজরেই দেখছেন তিনি। লেখকের মতে, এই সবটাই যে হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী মসনদে বসার পরেই।

Moumita Mondal
Moumita Mondal

মৌমিতা মণ্ডল, গ্র্যাজুয়েশনের পর শুরু নিয়মিত লেখালেখি। বিগত ৩ বছরেরও বেশি সময় ধরে লেখালেখির সাথে যুক্ত। প্রায় ২ বছর ধরে বাংলা হান্ট-এর কনটেন্ট রাইটার হিসেবে নিযুক্ত।

সম্পর্কিত খবর